banglanewspaper

বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার। নেয়া হয়েছে জাতীয় পর্যায়ে ব্যাপক কর্মসূচি। সরকারি উদ্যোগে আয়োজন করা হবে দেশের সকল জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নে বৈশাখী র‌্যালি। ৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

বরাবরের মতো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে মঙ্গল শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হবে। রমনা বটমূলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৪ মার্চ ২০১৯ সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপির সভাপতিত্বে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার হলে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ উদযাপন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ উপলক্ষে বাণী দেবেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ মঙ্গল শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করবে। ছায়ানট রমনা বটমূলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করবে।

বাংলা নববর্ষের তাৎপর্য এবং মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস ও ইউনেস্কো কর্তৃক ‘Intangible Cultural Heritage’ এর অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি তুলে ধরে বৈশাখের দিন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলা একাডেমির উদ্যোগে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হবে।

বাংলা নববর্ষ ১৪২৬’ উদযাপনকালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সারাদেশে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। পহেলা বৈশাখের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। ৩ এপ্রিল বুধবার  সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত সভায় তিনি এ নির্দেশনা দেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মঙ্গল শোভাযাত্রায় কোনো মুখোশ ব্যবহার করা যাবে না, তবে হাতে রাখা যাবে। পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রায় ভুভুজেলা নিষিদ্ধ থাকবে। এছাড়া শোভাযাত্রায় মুখোশ মুখে নয়, হাতে প্ল্যাকার্ড হিসেবে রাখা যাবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পহেলা বৈশাখে যে কোনো খোলা জায়গায় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক সব অনুষ্ঠান সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে শেষ করতে হবে। অনুষ্ঠানস্থলে ৫টার পর আর কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। বর্ষবরণের উদযাপন অনুষ্ঠানে ইভটিজিং, উচ্ছৃঙ্খলতা ও নাশকতা প্রতিরোধে ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকবে। বিষয়টি দেখার জন্য সাদা পোশাকে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সদস্যরা কাজ করবেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 বাংলা নববর্ষ