banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: হিন্দু ধর্মে দাদা,ঠাকুমা, মাসি,পিসি,কাকুসহ যৌথ পরিবার সকলের কাছে প্রিয়। তেমনি একটি যৌথ পরিবার ছিলো কবিতা রানীর। কিন্তু পারিবারিক বিশৃঙ্খলার কারনে ঘরের সামনে দেয়াল, সম্পর্ক নেই পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে।এমনকি কেউ কারো মুখ যেন না দেখতে পারে সেজন্য উঠানেই দেয়া হয়য়েছে টিনের বেড়া। কবিতার পরিবারের এমন অবস্থার অবসান ঘটাতে এগিয়ে আসলেন গাজীপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম বার।

১৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে বারোটায় শ্রীপুর সদর মধ্যবাজার পূঁজা মন্ডবের সামনে অবস্থিত কবিতা রানীর বাড়ীতে আসেন তিনি ।এসময় তার সাথে ছিলেন শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাবেদুল ইসলাম। 

কবিতা রানীর অভিযোগ, গত ৭বছর পূর্বে বিশ্বজিৎ বনিকের সাথে বিয়ে হয় তার। তাদের দাম্পত্য জীবনে মন্দিরা নামের একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। সংসার জীবনের কিছুদিন পর হতে স্বামীসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা প্রায় সময়ই তার সাথে ঝগড়া করতে  থাকে। এমনকি তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে তারা। তাই উপায় না পেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। 

তবে নির্যাতনের কথা অস্বীকার করে তার স্বামী বিশ্বজিৎ বনিক জানান, আমাদের যৌথ সংসারে তার (কবিতার)  সমস্যা হয়।  তাকে কিছু বলতে গেলে নির্যাতনের অভিযোগ দিয়ে আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের নানা হয়রানি করে থাকে। আমার কাকা উত্তম বনিকের নামে মিথ্যা অভিযোগ করেছিল সে। 

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিবেশী জানায়, বিশ্বজিৎ বনিক উচ্চ শিক্ষিত বটে কিন্তু সে কোন ব্যবসা বা চাকুরী করেনা। দীর্ঘ সময়ই ঘরে বসে থাকে বলে ছোটখাটো বিষয়ে স্ত্রীর সাথে  ঝগড়া হয় তার । তাদের ব্যাপারে আমরা কোন কথা বলতে গেলে আমাদের সাথেও রাগারাগি হয়।

শ্রীপুর বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি রহুল আমীন খান রতন জানান, তাদের পারিবারিক বিষয়ে মিমাংসা করার জন্য স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে নিয়ে কয়েকবার বসা হয়েছে। সংসারে প্রয়োজনীয় বিষয়ের অভাবে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হয়। 

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি জাবেদুল ইসলাম জানান, তাদের পারিবারিক বিষয়ে মিমাংসার জন্য এর আগেও স্থানীয় ভাবে বসা হয়েছে।  

গাজীপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার (পিপিএম বার) জানান, সামাজিক বন্ধন রক্ষার জন্য  যৌথ পরিবারের বিকল্প নেই। কবিতা রানীর বিষয়টি অবগত হয়ে তার নিষ্পাপ কন্যার দিকে গুরুত্ব দিয়ে পারিবারিক শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হয়েছে। স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই পরিবারের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে একসাথে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 শ্রীপুর