banglanewspaper

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার আট মাসের মাথায় মন্ত্রিসভায় ব্যাপক রদবদল আনলেন ইমরান খান। বৃহস্পতিবার এক ঘোষণায় তিনি মন্ত্রিসভায় নতুন ৫ জনকে অন্তর্ভুক্ত এবং ৪ জনের দপ্তর পাল্টে দিয়েছেন।

অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত দক্ষিণ এশিয়ার পরমাণু শক্তিধর দেশটির সংকটকালীন পরিস্থিতি বদলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গত বছরের নির্বাচনে জয়ী হয়েছিল ইমরানের তেহরিক-ই ইনসাফ।

খালিজ টাইমস শুক্রবার এক প্রতিবেদনে জানায়, প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার সাত মাসেও ইতিবাচক কোনও পরিবর্তন আনতে না পারায় তার ওপর অর্থ মন্ত্রণালয়ে রদবদলের চাপ ছিল। যে কারণে দীর্ঘদিনের ঘনিষ্ঠ আসাদ ওমরকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে সরাতে প্রায় বাধ্যই হয়েছেন বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটদলের সাবেক এ অধিনায়ককে।

আসাদের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন আবদুল হাফিজ শেখ। ২০১০-১৩ পর্যন্ত পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) সরকারে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

রয়টার্স এক প্রতিবেদনে জানায়, মন্ত্রিসভায় রদবদলের ঘোষণা আসার আগেই আসাদ পদ থেকে সরে যাওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে উত্তরসুরীর সামনে ‘বেশ কঠিন সময়’ আসছে বলে মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, মন্ত্রিসভার রদবদলের কথা জানিয়ে ইমরান তাকে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিতে চাইলেও রাজি হননি তিনি।

এদিকে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করতে হলেও আবদুল হাফিজ শেখের আনুষ্ঠানিক পদবি থাকছে- ‘অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা’। নির্বাচিত সাংসদ না হলে পাকিস্তানে সাধারণত বিশেষজ্ঞ কাউকে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে ‘উপদেষ্টা’ পদবিই দেওয়া হয়।

এদিকে মন্ত্রিসভার প্রভাবশালী সদস্য ফাওয়াদ চৌধুরীরও দপ্তর বদল হয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে তাকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

রদবদলে নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন সাবেক গোয়েন্দাপ্রধান অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার ইজাজ আহমেদ শাহ। জ্বালানি বিশেষজ্ঞ নাদিম বাবরকে দেওয়া হয়েছে পেট্রলিয়াম মন্ত্রণালয়। আর পেট্রলিয়াম মন্ত্রী গোলাম সারওয়ার খানকে করা হয়েছে বেসরকারি বিমান পরিবহন মন্ত্রী।

ট্যাগ: bdnewshour24 ইমরান খান