banglanewspaper

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যায় সব আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় কোনো পুলিশ সদস্যের গাফিলতি থাকলে তাদেরও বিচারের আওতায় আনা হবে।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ি এলাকায় তৈরি পোশাক মালিক ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) নবনির্মিত কমপ্লেক্সে শিল্প পুলিশ বিভাগকে পাঁচটি পিকআপভ্যান হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নুসরাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় যদি পুলিশের কোনো গাফলতি বা অবহেলা তদন্তে প্রমাণিত হয় তাহলে তাদেরকেও শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে, আইনের কাড়গড়ায় দাঁড়াতে হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। সে পুলিশ বা যত ক্ষমতা ধর ব্যক্তি হোক।

তিনি আরও বলেন, নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবগুলো আসামি আমাদের নেটে চলে এসেছে। যারা এজহারভুক্ত ছিল তারা সবাই গ্রেফতার আছে। গ্রেফতারকৃতদের ১৬৪ ধারায় প্রাপ্ত জবানবন্দি অনুযায়ী এ হত্যাকাণ্ডে কারা কখন কিভাবে জড়িত ছিল, খুনের মোটিভটা কি ছিল এবং কি উদ্দেশ্য ছিল এ সমস্ত তথ্য ইতোমধ্যে আমাদের পুলিশ বাহিনী বের করেছে। তাদের তালিকাও চূড়ান্ত করে সম্ভাব্য সকল অপরাধীকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে খুব শীঘ্রই পুলিশের পক্ষে থেকে একটা প্রেস রিলিজ দিবে। তখন আরও বিস্তারিত জানতে পারবেন।

তারেক জিয়া ও তার স্ত্রী ব্যাংক হিসাব জব্দের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এটি আদালতের বিষয়, আদালত জব্দ করেছে। আমাদের কাছে যা নির্দেশনা আসে আমরা তা পালন করবো। যদি দেশের বাহিরে কোনো নির্দেশনা থাকে তাহলে সেটি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেখবে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তারেক রহমানকে গ্রেফতার করে দেশে ফিরিয়ে আনতে একাধিকবার ইন্টারপোলে ওয়ারেন্ট পাঠিয়েছি। কিন্তু আমরা জেনেছি সে এসাইলাম (রাজনৈতিক আশ্রয়),  কাজেই এটা বোধ হয় কার্যকর হচ্ছে না।

সম্প্রতি তিন দিনের চীন সফর বৃহস্পতিবার দেশে ফিরিছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এ বিষয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, গত অক্টোবরে চীনের ইন্টেরিয়র মিনিস্টার আমাদের দেশে এসেছিলেন। তখন তিনি আমাকে চীন সফরে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। সেই আমন্ত্রণে গিয়েছিলাম। আর তিনি যখন দেশে এসেছিলেন তখন পুলিশ বাহিনীর সক্ষমতা নিয়ে কিছু চুক্তি হয়েছিল, সেগুলোর অগ্রগতি কতটুকু সেগুলো দেখতে গিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, চীনের ইন্টেরিয়র মিনিস্টার আমাকে জানিয়েছেন আমাদের পুলিশ বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি করার প্রশিক্ষণ দিবেন তারা। ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম, সাইবার ক্রাইম কিভাবে ঠেকানো যায় সে বিষয়ে কথা হয়েছে এবং ড্রাগ কিভাবে কন্টোল করা যায় সে বিষয়েও আমাদের আলোচনা হয়েছে। ডিএমপি-বেইজিং পুলিশের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে। রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেছি। তারা আশ্বাস দিয়েছেন রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে তাদের সহযোগিতা আমাদের জন্য সব সময় থাকবে। তারা এ বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার কথাও জানিয়েছেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী