banglanewspaper

সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি ইরানকে তার ভাষায় ‘অত্যন্ত খারাপ পরামর্শ’ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইরানকে ‘পরামর্শ’ দেয়ার মাধ্যমে কেরি আমেরিকার আইন লঙ্ঘন করে থাকতে পারেন বলেও আভাস দিয়েছেন ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘জন কেরি ইরানকে অত্যন্ত খারাপ পরামর্শ দিয়েছেন এবং তাকে সহায়তাকারীরা আমেরিকাকে ইরানের সঙ্গে অত্যন্ত খারাপ পরমাণু চুক্তিতে টেনে নিয়ে গেছেন’। এরপর ট্রাম্প প্রশ্ন করেন, ‘(এতে কি) লোগান চুক্তির বড় ধরনের লঙ্ঘন হয়েছে?’

২০১৫ সালের জুলাই মাসে আমেরিকাসহ ছয় বিশ্ব শক্তি ইরানের সঙ্গে পরমাণু সমঝোতা স্বাক্ষর করে। আমেরিকার পক্ষে ওই সমঝোতায় স্বাক্ষর করেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি।

কিন্তু গত বছরের মে মাসে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ওই সমঝোতা থেকে আমেরিকাকে বের করে নেন। সে সময় ট্রাম্পের এই পদক্ষেপের তীব্র সমালোচনা করেন জন কেরি। পরমাণু সমঝোতার আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী জন কেরি এই সমঝোতাকে ‘সবচেয়ে শক্তিশালী, সবচেয়ে জবাবদিহীমূলক এবং বিশ্বের সবচেয়ে স্বচ্ছ পরমাণু সমঝোতা’ বলে উল্লেখ করেন।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব ছেড়ে দেয়ার পরও কেরি ইরানের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেন এবং তিনি ট্রাম্পের ক্ষমতা চলে যাওয়া পর্যন্ত তেহরানকে অপেক্ষা করার পরামর্শ দেন বলে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়। ডোনাল্ড ট্রাম্প গত বছর কেরিকে আক্রমণ করে বলেন, তিনি ইরানি কর্মকর্তাদের সঙ্গে ‘অবৈধ বৈঠক’ করেছেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৭৯৯ সালে অনুমোদিত লোগান আইনে আমেরিকার শত্রুভাবাপন্ন কোনো দেশের সঙ্গে ওয়াশিংটনের অনুমতি ছাড়া আলোচনা করাকে অপরাধ বলে গণ্য করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ১৮০২ এবং ১৮৫২ সালে মাত্র দুই ব্যক্তি এই আইন লঙ্ঘনের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন।

ট্রাম্প প্রশাসনের বিরোধীদের পাশাপাশি কোনো কোনো মার্কিন গণমাধ্যম বলছে, ট্রাম্পের সাবেক নিরাপত্তা উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিন ক্ষমতা গ্রহণের আগে ওয়াশিংটনে নিযুক্ত তৎকালীন রুশ রাষ্ট্রদূত সের্গেই কিসলিয়াকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে লোগান চুক্তি লঙ্ঘন করেছিলেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 জন কেরি