banglanewspaper

মাগুরা প্রতিনিধি: মাগুরা সদর উপজেলার রাঘবদাইড় তেরিয়া গ্রামে প্রতিপক্ষ দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে নারীসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় বেশ কয়টি বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। আহত ১০ জনকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এলাকায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে আহত শেফালী বেগমের মেয়ে লিপি জানান, গ্রামের ইবাদোত মোল্লার মেয়ে বিয়ের দাওয়াতে যাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের ফারুক ও নুর উদ্দিন মোল্লাসহ তার দলের লোকেরা  বাড়িতে এসে তার ভাই জামাল কে ধরে নিয়ে দড়ি দিয়ে বেধে মারধর করলে তার বৃদ্ধা মা শেফালী বেগম ছেলে কে ঠেকাতে গেলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে তারা।

এ ঘটনার এক পর্যায় গ্রামের প্রতিপক্ষ দুইদলের লোকেদের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে,  এ সময় তার ভাবি রেশমাসহ ১০- ১২ অহত হয়েছে, এ সময় তাদের বাড়িসহ বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে জানান তিনি। 

আহত জামাল জানান, হামলাকারী ফারুক ও নুরুউদ্দিন মোল্লা সম্পর্কে তার নিকট আত্বীয় হলেও গ্রাম্য সামাজিকভাবে ভিন্ন দলভুক্ত তারা , ফারুক ও নুরউদ্দিন মোল্লা রাঘবদাইড়ের আলম মোল্লা, নান্টু চেয়ারম্যানের দলের অন্তরর্ভুক্ত আর অপর প্রতিপক্ষ মোহন মুন্সি, মিলন শিকদারের সামাজিক দলভুক্ত লোক হিসেবে চলেন তারা। 

এ অবস্থায় গতকাল গ্রামের ইবাদত মোল্লার মেয়ের বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়, প্রতিবেশী হিসেবে তার সাথে সাখ্যতার কারনে দাওয়াত থাকায় সেখানে যান তিনি। কিন্তু গ্রাম্য অপর প্রতিবেশী  ফারুক ও নুর উদ্দিন কে বিয়ের অনুষ্ঠানে দাওয়াত না করায় ক্ষিপ্ত হন তারা এবং এর জের ধরে আমার ওই বিয়ে বাড়িতে যাওয়া কে কেন্দ্র করে ক্ষিপ্ত হয়ে আজ সকালে দলবল সহবাড়িতে এসে আমাকে ধরে নিয়ে দড়ি দিয়ে বেধে মারধর করতে থাকাকালিন আমার অসুস্থ বৃদ্ধাা মা এগিয়ে গেলে তাকেও নির্মম ভাবে কুপিয়ে জখম করে তারা, পরে এ ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ হয়। 

এ সময় আমার মা শেফালী বেগম ছাড়াও বৌ রেশমাসহ প্রতিবেশী জুয়েল (১৪) হাসমত আলী(৫০) মঞ্জু (১৭) মোমিন, মুরাদসহ (৪০) ১০ জন গুরুত্বর জখম অবস্থায় সদর হাসপাতালে  ভর্তি রয়েছি বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে এলাকায় ফিরেছেন বলে জানান তিনি। 

এ ব্যাপারে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব তারিকুল ইসলাম জানান, ঘটনার পর পরই পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেছে, এলাকার সার্বিক নিরাপত্তায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আপাতত পুনরায় সংঘর্ষের আশংকা নেই বলে জানালেন তিনি।

ট্যাগ: bdnewshour24 মাগুরা