banglanewspaper

সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দীন চৌধুরী মানিক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছয় দফা শুধু একটি ঘোষণা নয়, এটি একটি দর্শন। ছয় দফায় রয়েছে- অর্থনীতি, রাজনীতি, শোষিত-নিপীড়িত মানুষের কথা।

ছয় দফা প্রণয়নকারী সেই মহামানবকে হত্যার পর ২১ বছর দেশ শাসন করেছেন পাকিস্তানপন্থীরা। পাকিস্তানের ২৩ বছর ও পাকিস্তানপ্রেমীদের দেশ শাসনের ২১ বছর বাংলাদেশের অন্ধকার যুগ।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা ও আমাদের স্বাধীনতা’ শীর্ষক সেমিনারে এসব কথা বলেন তিনি। জাগো বাংলা ফাউন্ডেশন আয়োজিত এ সেমিনারে প্রধান আলোচক ছিলেন সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দীন চৌধুরী মানিক।

বিচারপতি মানিক বলেন, অ্যারিস্টটল, প্লেটো থেকে শুরু করে বর্তমান সময় পর্যন্ত যেসব দার্শনিক জন্ম নিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন তাদের সমকক্ষ। এমনকি রাজনীতিতে বিশ্বে যারা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, বঙ্গবন্ধু তাদের মধ্যেও অন্যতম।

১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা প্রস্তাবকে বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ উল্লেখ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা ছিল বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ। সেই ছয় দফা যদি সেদিন মেনে নেয়া হতো, তা হলে সেদিনই বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্রে পরিণত হতো। ছয় দফার প্রতি জনগণের পূর্ণ সমর্থন ছিল। বঙ্গবন্ধু ভাষা আন্দোলনেরও নেতৃত্ব দেন, যা আমাদের দেশে সেভাবে প্রচারিত হয় না।

ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী নাসির আহমেদের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকার কথা ছিল সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন-অর-রশীদ।

সেমিনারে যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম বলেন, ছয় দফা বাংলাদেশের স্বাধীনতার মূল ভিত্তি রচনা করেছিল। মুক্ত চিন্তা ও স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের অধিকার যে মানুষের আছে, সেই ধারণা এবং একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বেড়ে ওঠার প্রাথমিক ধারণাটা ছয় দফার মধ্যে নিহিত ছিল।

সমকালের উপসম্পাদক অজয় দাশগুপ্ত বলেন, বঙ্গবন্ধু নিশ্চিত ছিলেন যে, পাকিস্তান কাঠামোর মধ্য থেকে বাঙালির অধিকার আদায় সম্ভব হবে না। বঙ্গবন্ধু বুঝতে পেরেছিলেন, বাঙালিরা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত। সেই পটভূমিতেই তিনি ছয় দফা কর্মসূচি দিয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের নানা দিক তুলে ধরে সভাপতির বক্তব্যে নাসির আহমেদ বলেন, রাজনীতিতে ভিন্নমত থাকবে। ভিন্নমত মানে এই নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করবে না, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করবে না এবং সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেবে। বিরোধী দল থাকবে, তবে তাদেরও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শে বিশ্বাসী হতে হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 বঙ্গবন্ধু হত্যা পাকিস্তানপন্থী বিচারপতি মানিক