banglanewspaper

দাম বাড়ানোর চারদিন পর স্বর্ণের দাম কমানোর ঘোষণা দিয়েছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। প্রতি ভরি স্বর্ণে এক হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে নতুন দর নির্ধারণ করেছে সংগঠনটি।

সোমবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বাজুস। মঙ্গলবার (১৮ জুন) থেকে স্বর্ণের এ নতুন দর কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে বাজুস। এর আগে গত ১৪ জুন শুক্রবার প্রতি ভরি স্বর্ণে এক হাজার ১৬৬ টাকা বাড়িয়েছিল বাজুস।

নতুন দাম অনুযায়ী, ২৩ ক্যারেটের প্লাটিনামের প্রতি ভরির দাম কমেছে ২ হাজার ৩৩২ টাকা। এ ছাড়া ২২, ২১ ও ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ প্রতি ভরিতে কমানো হয়েছে ১ হাজার ৬৬৬ টাকা। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণ ও রুপার দাম।

আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম কমার কারণে দেশের বাজারে তা সমন্বয় করতে এ দাম কমানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা।

বাজুস জানায়, ১৮ জুন (মঙ্গলবার) থেকে দেশের বাজারে প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) ২৩ ক্যারেটের প্লাটিনামের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৬১ হাজার ৮১৯ টাকা, ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ হাজার ১৫৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

২১ ক্যারেট ৪৭ হাজার ৮২২ টাকা এবং ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৪২ হাজার ৮০৭ টাকা। প্রতি ভরি সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণ অপরিবর্তিত রেখে নির্ধারণ করা হয়েছে ২৭ হাজার ৫৮৫ টাকা। প্রতি ভরি ২১ ক্যারেট রুপা (ক্যাডমিয়াম) দাম এক হাজার ৫০ টাকা।

এদিকে গত ১৩ জুন বৃহস্পতিবার সংসদে উত্থাপিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাবে স্বর্ণ আমদানিতে শুল্কহার কমানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। বর্তমানে ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ (বার) আমদানি করতে শুল্ক ৩ হাজার টাকা শুল্ক দেয়ার নিয়ম রয়েছে। এই আমদানি শুল্ক এক হাজার টাকা কমিয়ে দুই হাজার টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

এছাড়া সম্প্রতি দেশের স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের কাছে থাকা স্বর্ণগুলোর বৈধতা দেয়ার জন্য ভরিপ্রতি ১ হাজার টাকা করে কর দেয়ার সুযোগ দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। এর আগে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের দাবির প্রেক্ষিতেই প্রদান করা হয়েছে স্বর্ণ নীতিমালা।

ট্যাগ: bdnewshour24 স্বর্ণের দাম