banglanewspaper

এইচ,এম ইমরান, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ড উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ি ব্যবহার করে বাল্যবিয়ে দিতে এসে ফেঁসে গিয়ে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা দিলেন ৪ ইউপি চেয়ারম্যান।

এ ঘটনায় মেয়ের বাবা ও খালাত ভাইকে ৪ দিন করে জেল দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। ঘটনাটি ঘটেছে বুধাবার দুপুরে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ইবি থানার ঝাউদিয়া এলাকায়।

ইবি থানার ওসি রতন শেখ জানান, তার কাছে সকাল থেকেই খবর আসে তার ইবি থানার ঝাউদিয়া নিয়ামত পিরের বাড়ি এলাকায় দশম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীর বাল্যবিয়ের প্রস্তুতি চলছে। খবর পেয়ে সেখানে ছুটে যান ইবি থানার ওসি রতন শেখ।

মুহুর্তের মধ্যে সেখানে ভি আইপি স্টাইলে ঝিনাইদহ হরিনাকুন্ড উপজেলা চেয়ারম্যানের সরকারী গাড়ি নিয়ে ৪ ইউপি চেয়ারম্যানসহ হরিনাকুন্ডুর কুলবাড়িয়া গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে বর রাসেলকে নিয়ে বরযাত্রীরা সেখানে উপস্থিত হন।

এ সময় এ বাল্যবিয়েতে বাঁধা দেয় ইবি থানার ওসি। সে সময় বর যাত্রী আসা হরিনাকুন্ডু উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর এর ব্যবহৃত গাড়ি নিয়ে ১নং ভায়না ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সমির উদ্দিন (৫৪), ৬ নং ফলসি ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান খবির (৫৬), ৮ নং চাদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মস্তফা (৫৮), ও ৪ নং দৌলতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী (৫৭) হাজির হন। তারা নানা রকম প্রভাব খাটিয়ে এই বাল্যবিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন।

পরে সেখানে এক ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ওই চার চেয়ারম্যান কে ১০ হাজার করে মোট ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের হাকিম। এ ছাড়া মেয়ের পিতা মিলন বিশ্বাস ও মেয়ের খালাতভাই মিনারুল হোসেনকে ৪ দিন করে জেল দেন। সে সাথে পন্ড করে দেয়া হয় এই বাল্যবিয়ে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুবায়ের হোসেন চৌধুরী। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ইবি থানার অফিসার ইনচার্জ রতন শেখ এবং ঝাউদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কেরামত আলী।

ট্যাগ: bdnewshour24 বাল্য বিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান