banglanewspaper

খান মোঃ আসাদ উল্লাহ, ববি প্রতিনিধিঃ শিক্ষার্থীদের আইডি কার্ড নিয়ে নানান তালবাহানা করে চলেছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। একারণে বিভিন্ন সময় সমস্যায় পরতে হয় ছাত্রছাত্রীদদের।

সাড়ে ৩ বছরেও কোন ধরনের পরিচয়পত্র পায়নি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। স্মার্টকার্ড দেওয়ার কথা বলে দুই বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আশ্বাস দিলেও তা পুরোপুরি সফলতার মুখ দেখেনি।

এমনকি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক কোন পরিচয়পত্রও দেয়া হয়নি।প্রশাসন অযৌক্তিক বিলম্ব করছে বলে অভিযোগ করেন শিক্ষার্থীরা। পরিচয়পত্র না থাকায় প্রায়ই পুলিশী হয়রানির শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও লোকাল বাসে হাফ ভাড়া নিয়েও চলে বাকবিতণ্ডা।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৫-১৬, ২০১৭-১৮ ও ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের অধিকাংশ শিক্ষার্থীই টেম্পোরারি বা স্মার্টকার্ড পায়নি। লোকপ্রশাসন বিভাগ, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা , মৃত্তিকা ও পরিবেশ বিজ্ঞান, ও মার্কেটিং বিভাগের কয়েকটি ব্যাচ স্মার্টকার্ড পেলেও অন্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা পায়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্র।

২০১৫-১৬ সেশনের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী হাসনাইন জানান, `স্মার্টকার্ডের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ২-৩ বার ছবি ও অন্যান্য কাগজপত্র জমা নিলেও এখনও কোন ধরনের পরিচয়পত্র দিতে পারেনি।'

আন্দোলনের মুখে ভিসি চলে যাওয়ায় কেন এতো বছর পরও শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্র দেয়া হয়নি তার সদুত্তর দিতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, ভর্তির সময় পরিচয়পত্র বাবদ প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ২০০ টাকা করে নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে আট হাজার শিক্ষার্থী একাডেমিক কার্যক্রমের সাথে যুক্ত। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়ে সাড়ে ৩ বছর ধরে বাণিজ্য করেছে। যত দ্রুত সম্ভব পরিচয়পত্র বা স্মার্টকার্ড সরবরাহের দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার ও ভারপ্রাপ্ত ভিসি ড. এ কে এম মাহবুব হাসান জানান, `অতিদ্রুত সাময়িক আইডি কার্ড দেয়ার জন্য সব বিভাগে চেয়ারম্যানদের নোটিশ দেয়া হয়েছে।'

ট্যাগ: bdnewshour24 আইডি কার্ড ববি প্রশাসন