banglanewspaper

নিউজিল্যান্ডের নামকরা একটি রেস্টুরেন্টে সুশি খেতে দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন আসেন। শনিবার রাতে এসেছিল এক জোড়া পেঙ্গুইন, আকারে ছোট, নীলচে।

টেবিলে সাজানো সুশি পেট ভরে খেয়ে শিস দিতে দিতে চলে যাচ্ছিলো তারা। যদিও, বেশিদূর যেতে পারেনি। রেস্টুরেন্টে বসানো ক্যামেরায় ধরা পড়েছে গোটাটাই। রেস্টুরেন্ট থেকে বের হতেই হাতেনাতে পাকড়াও হয়ে যায় পুলিশের হাতে।

‘সুশি বি’ নামের এই রেস্টুরেন্টের মালিকের কাছে শনিবার রাতে ফোন গিয়েছিল পুলিশের কাছ থেকে। পুলিশকর্মী তাকে বলেছিলেন, ‘আপনার রেস্টুরেন্ট থেকে চোর ধরা পড়েছে।’

তড়িঘড়ি রেস্টুরেন্টে পৌঁছে আটকদের দেখে তো তার মাথায় হাত! 

পরে খবর দেয়া হয় পেঙ্গুইন সংরক্ষণ বিভাগে। সেখান থেকে প্রতিনিধিরা এসে পেঙ্গুইন যুগলকে ধরে সমুদ্রতীরে নিয়ে গিয়ে ছেড়ে দেন। সপ্তাহখানেক আগে স্থানীয় একটি রেলস্টেশনের কাছে একই ভাবে ঘুরপাক খেতে দেখা গিয়েছিল দু’টি পেঙ্গুইনকে। তারাই এই যুগল কি না, সে বিষয়ে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। 

‘করোরা’ নামের এই প্রজাতির পেঙ্গুইনের আধিক্য রয়েছে মূলত অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে। ওয়েলিংটন হারবারে এরাই পর্যটকদের মূল আকর্ষণ। এখানে এদের দেখার জন্য ‘গাইডেড ট্যুর’ও চালানো হয়। 

তবে স্থানীয়দের অধিকাংশেরই বক্তব্য, দেখতে সুন্দর হলেও এদের দূর থেকে দেখাই ভালো। কারণ, এরা কামড়েও দেয়। 

এ ভাবে সমুদ্রতীরের নজরদারি এড়িয়ে পেঙ্গুইনরা শহরে ঢুকে পড়ার জন্য প্রশাসনকেই দায়ী করছেন স্থানীয়রা। তবে অতিথিরা মানে মানে ঘরে ফিরে গিয়েছে, এতেই খুশি ওয়েলিংটন। 

আর রেস্টুরেন্টের মালিক? তিনি গর্ব করে বলেন, ‘আমার দোকানের সুশি তো পেঙ্গুইন-ও পছন্দ করে!’

ট্যাগ: bdnewshour24 রেস্টুরেন্টে পেঙ্গুইন দম্পতি