banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: পড়নে লুঙি, গায়ে ছেঁড়া টিসার্ট ও কাঁধে গামছা পেচানো অবস্থায় একজন রিকশাচালকের বেশ। নতুন ইজিবাইক কিনতে একজন ব্যবসায়ীর কাছে গেলেন এস.আই। ওই ব্যবসায়ী তার গোডাউনে আরো নতুন মাল আছে বলে দেখাতে নিয়ে যান। সেখানেই পাওয়া যায় মামলার আলামত ১৬ ইজিবাইক। রিকশাচালক সেজে এমন অভিনব কায়দায় তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ১৬ লাখ টাকার ইজিবাইক উদ্ধার করেছেন গাজীপুরের শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই)  মোঃ আশরাফুল্লাহ। 

এ ঘটনার সাথে জড়িত কভার্ট ভ্যান ড্রাইভার রবিউল ইসলাম রুবেলকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হন তিনি। গ্রেফতার হওয়া রবিউল ইসলাম রবেল (২৫) চট্রগ্রাম জেলার ভুজপুর থানার ঘাটপাড়া গ্রামের  আব্দুল হালিমের ছেলে। 

মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) সকালে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এমন তথ্য জানান শ্রীপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আবুল কালাম ভুঁইয়া।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ জুন রাতে শ্রীপুর উপজেরার আবদার এলাকায় অবস্থিত ডাইনামিক কারস্ লিঃ  থেকে ১৮ সেট থ্রি হুইলার ইজিবাইকের মালামাল ডেলিভারির জন্য অভিযুক্ত রুবেল কভার্ট ভ্যান চট্র মেট্রো-১১-৬৯৩৯ এর মাধ্যমে মাদারীপুরের মোস্তফাপুর বাস ষ্ট্যান্ডে অবস্থিত" থ্রি হইলার ইজিবাইক জনপদ মটর”-তে নিয়ে যাওয়ার চুক্তি করে। কিন্তু কভার্ট ভ্যানটি নির্দিষ্ট গন্তব্যে না নিয়ে গাড়ীর মালিক আলী হোসেনের যোগসাজসে আত্মসাৎ করে। এ ঘটনায় নাহি  গ্রুপের নির্বাহী (মানব সম্পদ ও প্রশাসন) বাদী হয়ে গত ৪ জুলাই শ্রীপুর থানায় মামলা নং-০৬(০৭)১৯ দায়ের করেন। সেই মামলার তদন্ত কালে এস.আই মোঃ আশরাফুল্লাহ অভিনব কৌশল ও তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ২৫ জুলাই চট্রগ্রাম জেলার সীতাকুন্ড থানার ফৌজদারহাট এলাকা হতে আত্মসাৎ হওয়া ইজিবাইক বহনকারী কভার্ট ভ্যানটি উদ্ধার করা হয়। এরই সূত্র ধরে ২৮ জুলাই কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম সদর থানা এলাকা হতে কভার্ট ভ্যান ড্রাইভার রবিউল ইসলাম রুবেলকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্যের উপর ভিত্তি কর কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম থানার মিয়ার বাজার এলাকায় একটি গোডাউন থেকে চোরাই যাওয়া ১৬ টি ইজিবাইক উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও একই উপজেলার বাটবাড়ী গ্রামের রাসেল মিয়ার বসত বাড়ী থেকে ১৬টি মটর উদ্ধার করা হয়। 

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই)  মোঃ আশরাফুল্লাহ জানান, মামলার তদন্তভার আমার উপর আসলে গাজীপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার (পিপিএম) স্যার ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী স্যারের দিক নির্দেশনায় আমি পি.এস.আই আহসানুজ্জামানকে সাথে নিয়ে কুমিল্লা, মুন্সিগঞ্জ ও চট্রগ্রাম জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করি। পরে বিভিন্ন কৌশল ও গ্রেফতার হওয়া আসামীর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মালামাল উদ্ধার করতে সক্ষম হই। 

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, গত ৪ জুলাই এ ব্যাপারে একটি মামলা হওয়ার পর ১৬ লাখ টাকার ইজিবাইক উদ্ধার করার জন্য নিয়মিত পুলিশের অভিযান পরিচালনা করা হয়। অবশেষে মালামালসহ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। 

গাজীপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার (পিপিএম) জানান, তথ্য প্রযুক্তির যুগে কোন অপরাধ করে পুলিশের চোখকে ফাঁকি দেয়া যায়না। মালামাল উদ্ধারের জন্য এস.আইকে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারসহ বিভিন্ন কৌশল প্রয়োগ করতে হয়েছে। প্রথমে দিনমুজুরের অভিনয় ও পরে রিকশা চালক সেজে অভিনব কায়দায় মালামাল উদ্ধার এবং এর সাথে জড়িতদের  গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 শ্রীপুর