banglanewspaper

সদ্য সমাপ্ত বিশ্বকাপে আম্পারিং নিয়ে প্রচুর আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে। এবার আম্পায়াররা আরও এক কারণে আলোচনায় এলেন। কারণ, তাদের বেতন। আইসিসি প্যানেলভূক্ত আম্পায়াররা কত টাকা বেতন পান তা প্রকাশ্যে এসেছে।

আম্পায়ারদের বেতন দেওয়ার ক্ষেত্রে আইসিসি কার্পণ্য করে না। আন্তর্জাতিক ম্যাচে আম্পায়াররা মোটা টাকা বেতন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের জন্য এলাহি থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থাও থাকে।

আন্তর্জাতিক ম্যাচে আইসিসি আম্পায়ারদের এলিট প্যানেলের সদস্য বছরে ৩৫ থেকে ৪৫ হাজার মার্কিন ডলার বেতন পেয়ে থাকেন। অর্থাৎ, একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করতে বাংলাদেশী মূদ্রায় প্রায় ৪০ লাখ টাকার কাছাকাছি বেতন পেয়ে থাকে এলিট প্যানেল।

তিনটি টেস্ট ম্যাচের জন্য তারা তিন হাজার মার্কিন ডলার (বাংলাদেশী টাকায় আড়াই লক্ষ টাকা থেকে কিছুটা বেশি) করে পেয়ে থাকেন। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচের জন্য তাদের বরাদ্দ যথাক্রমে ২২০০ মার্কিন ডলার (বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ২ লক্ষ  টাকা) ও ১০০০ মার্কিন ডলার (বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ১ লক্ষ টাকা)। একজন এলিট প্যানেলের আম্পায়ার বছরে আট থেকে দশটি টেস্ট ম্যাচে দায়িত্ব পালন করেন। ওয়ানডের সংখ্যা ১০-১৫টি।

বার্ষিক ফি ছাড়াও আইসিসির আরো সুযোগ সুবিধাভোগ করেন তারা। বার্ষিক বোনাসও রয়েছে তাদের জন্য। আইসিসি ইভেন্টে আম্পায়ারিং করলে টাকার পরিমাণটা বাড়ে। বিশ্বের যে প্রান্তেই ম্যাচে থাকুক, তাদের বিমানে যাতায়াত, পাঁচ তারকা হোটেলে থাকা-খাওয়ার বিষয়গুলো আইসিসি দেখে। সেক্ষেত্রে তাদের একটি টাকাও খরচ করতে হয় না।

এই মুহূর্তে আইসিসি’র এলিট প্যানেলে রয়েছেন মোট ১২ জন আম্পায়ার। আলিম দার, কুমার ধর্মসেনা, মারাইস এরাসমাস, ক্রিস গেফানে, মাইকেল গফ, রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ, রিচার্ড কেটেলবোরো, নাইজেল লং, ব্রুস অক্সফোর্ড, পল রেইফেল, রোড টাকার এবং জোয়েল উইলসন। তাদের মধ্যে নতুন সংযোজন ইংল্যান্ডের মাইকেল গফ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের জোয়েল উইলসন।

ট্যাগ: bdnewshour24 আইসিসি