banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ,শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের শ্রীপুরে অষ্টম শ্রেনীতে পড়–য়া তের বছরের এক কিশোরী হঠাৎ উধাও হওয়ার ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। এ ঘটনার ২০ দিন পেরিয়ে গেলেও কিশোরীর মা প্রশাসনের সহায়তা না নেওয়ায় এলাকায় চলছে নানা গুঞ্জন।

১লা আগস্ট বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে উপজেলার বরমী ইউনিয়নের ওই এলাকায় গিয়ে জানা যায়, হঠাৎ উধাও হওয়া কিশোরীটি স্থানীয় একটি দাখিল মাদরাসায় অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী ছিল। তার মা একই এলাকার মৃত ইমান আলীর ছেলে শাহিদ মেলেটারী (৪০) এর বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করে।

স্থানীয় একাব্বর মিয়া জানান, উধাও হওয়া কিশোরীর মা শাহিদ মেলেটারির বাড়িতে কাজ করার সুবাদে তার মেয়ে নিয়মিত আসা যাওয়া করত। আমাদের ধারনা যে কেউ ওই মেয়েটির সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে মেয়েটি অন্ত:সত্বা হয়ে পড়লে একটি প্রভাবশালী মহলের সহায়তায় ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে অবৈধ গর্ভপাত ঘটানো হয়।

এর পর থেকেই এলাকায় দেখা যাচ্ছিল না মেয়েটিকে। এর আগেও শাহিদ মেলেটারির এমন অপকর্ম রয়েছে। প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষনের একটি মামলাও রয়েছে তার নামে। ক্ষমতাশালী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে সাহস পায় না। এছাড়ও তার অর্থের কাছে অনেকে নত হয়ে যায়।

স্থানীয় বিল্লাল হোসেন বিলু জানান, গত তিন সপ্তাহ আগে সিএনজি দুর্ঘটনায় শাহিদ মেলেটারীর স্ত্রীর দুই পা ভেঙ্গে যায়। একই গাড়ীতে উধাও হওয়া কিশোরীর মামা দুলালও ছিল বলে জানা যায় এবং এ ঘটনায় দুলালের মুখের দাঁত ভেঙ্গে যায়।

কোথায় গিয়েছিল এ কথা জানতে চাইলে শাহিদের স্ত্রী জানান, আমি অসুস্থ তাই একটি হাসপাতালে গিয়েছিলাম। কিন্তু পরের দিন লোক মুখে জানা যায়, অন্ত:সত্বা ওই কিশোরীকে একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত করানো হয়েছে। 

উধাও হওয়া কিশোরীর পাশের বাড়ির আবুল হোসেন আবু জানান, মেয়েটি ১৫/২০দিন ধরে বাড়িতে না থাকায় তার বাবা মাকে তার সম্পর্কে জিজ্ঞাস করলে তারা কোথায় গেছে সেটাও বলতে পারে না বলে জানান। পরে লোকমুখে আমরা উক্ত ঘটনা শুনেছি। গত বুধবার শাহিদ মেলেটারির ভাগিনা লোকমান মেলেটারির উদ্যোগে সামাজিক ভাবে এ ঘটনার মিমাংসা হওয়ার কথা থাকলেও অভিযুক্ত শাহিদ মেলেটারি আসেনি।

উধাও হওয়া কিশোরীর মা জানান, ১৫-২০দিন ধরে আমার মেয়েকে খোঁজে পাচ্ছিনা। সকল আত্মীয়-স্বজনদের বাড়ীতে খোঁজ নেয়া হচ্ছে। নিজের সন্তান এতদিন ধরে নিখোঁজ হলেও প্রশাসনের সহায়তা না নেয়ার কারন জানতে চাইলে নিরব হয়ে যান ওই কিশোরীর মা।

এ ব্যাপারে শাহিদ মেলেটারির সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার স্ত্রী এক্সিডেন্ট করে দুই পা ভেঙ্গে যাওয়ায় স্ত্রীকে নিয়ে তিনি ব্যস্ত । অন্ত:সত্বা বা কিশোরী উধাও হওয়ার ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান তিনি। তবে তার বাড়িতে থাকা গৃহকর্মীর সন্তান ১৫/২০ দিন ধরে নিখোঁজ হলেও কিশোরীর স্বজনদের তিনি কেন প্রশাসনের আশ্রয়ে পাঠাননি এমন প্রশ্নের কোন উত্তর দিতে পারেননি।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফারুক ঢালী জানান, বিষয়টি তিনি লোকমুখে শুনেছেন। ভিকটিমদের কেউ তার কাছে আসেনি। এছাড়াও মেয়ে সংক্রান্ত ব্যাপারে কোন বিচার শালিসে তিনি থাকেন না বলেও জানান।

বরমী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল হক বাদল সরকার জানান, তিন সপ্তাহ ধরে কোন কিশোরী নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে থানায় জিডি কেনো করা হলোনা তার কারন বুঝতে রহস্যজনক মনে হচ্ছে। তাই বিষয়টি  প্রশাসনের  নজর দেয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, এ বিষয়ে কেউ আমাদের কাছে আসেনি। অভিযোগ পেলে যথাযথা আইনী প্রক্রিয়া গ্রহন করা হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 শ্রীপুর