banglanewspaper

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ভারতের কাশ্মির ইস্যু পর্যবেক্ষণ করছে সরকার। ভারত কাশ্মির নিয়ে ৩৭০ ধারা বিলুপ্ত করেছে। এটা ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কোনও দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে মন্তব্য করার এখতিয়ার আমাদের নেই।

বুধবার (৭ আগস্ট) রাজধানীর মিরপুরে মাজার রোডে মশক নিধন এবং ডেঙ্গু প্রতিরোধে আওয়ামী লীগের সচেতনতামূলক কর্মসূচির অংশ হিসেবে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি শুরুর আগে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ডেঙ্গু নিধনে দায়সারা গোছের ওষুধ ছিটিয়ে আওয়ামী লীগ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করতে চায় না। আগস্ট মাসে আমরা জনস্বার্থে এই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান করছি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মা তখনই শান্তি পাবে, যখন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার মধ্যদিয়ে আমরা দেশবাসীকে ডেঙ্গু মুক্ত একটা পরিবেশ দিতে পারবো।’

ডেঙ্গু মোকাবিলায় নিয়োজিত সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দায়সারা গোছের মশার ওষুধ ছিটানোর দরকার নেই। সিটি করপোরেশনের কাছে দ্রুতই মশার ওষুধ আসবে। তাই দায়সারা গোছের মশার ওষুধ ছিটানোর দরকার নেই। খুব অল্প সময়ের মধ্যে সবাই কার্যকর ওষুধ পেয়ে যাবেন।’

দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডেঙ্গু মোকাবিলায় নেতাকর্মীদের যে নির্দেশ দিয়েছেন, এ অনুষ্ঠানে তা পুনরুল্লেখ করেন কাদের। তিনি বলেন, ‘লন্ডন সফরে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিবিসি বাংলাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনা নিয়ে কথা বলেছেন। তার নির্দেশ অনুসারে—কারও ঘরে যদি পানি জমে থাকে, যেখানে এ ধরনের মশা তৈরি হয়, এরকম আমরা যদি দেখতে পাই, তাহলে তাদের জরিমানা করা হবে।’

ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনগণকে সচেতন করার ওপর গুরুত্ব দিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘যতদিন আমরা এই ডেঙ্গু জ্বর আর এডিস মশাকে নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারবো, ততদিন পর্যন্ত আমাদের এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও সচেতনতামূলক কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘নগরবাসীকে যার যার ঘর, ঘরের আঙিনা, যার যার কর্মস্থল, আশপাশের এলাকা, স্কুল, কলেজ ক্যাম্পাস এবং বিপণিবিতান পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।’ সমন্বিত উদ্যোগে এই প্রাণঘাতী মশক নিধন এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সফলতা আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন ওবায়দুল কাদের।

ট্যাগ: bdnewshour ওবায়দুল কাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডেঙ্গু