banglanewspaper

দিল্লির জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের এর প্রাক্তন ছাত্রনেতা (ছাত্রী)  ও ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের ভিপি শেহলা রশিদ জম্মু কাশ্মীর এর পরস্থিতি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়া খবর পোস্ট করেছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়। তবে শেহলা রশিদ দাবি করেছেন এসব গোপন ও অপ্রকাশিত তথ্য। 

শেহলা রশিদের ওই দাবিকে নস্যাৎ করে, সমস্ত খবরকে ভুয়া বলে জানিয়ে দেয় ভারতীয় সেনা। ভারতীয় সেনার বক্তব্যের পর এবার সুপ্রিম কোর্টে  এর আইনজীবী অলোক শ্রীবাস্তব শেহলা রশিদের ওপর ভুয়া খবর ছড়ানোর অভিযোগ এনে তাঁর উপর অপরাধিক মামলা দায়ের করে গ্রেপ্তারির দাবি জানান।

শেহলা রশিদ রবিবার কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে বিভিন্ন সময় প্রাপ্ত খবর নিয়ে ১০ টি ট্যুইট করেছিলেন। শেহলা রশিদ নিজের ট্যুইটে দাবি করেছিলেন যে, বর্তমানে কাশ্মীরের পরিস্থিতি খুবই খারাপ। শেহলা রশিদ লিখেছিলেন, জম্মু কাশ্মীরের মানুষ উনাকে বলেছেন যে, কাশ্মীরের সেনা আর পুলিশ রাতে কাশ্মীরিদের বাড়ি ঢুকে বাচ্চাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাচ্ছে। এমনকি বাড়ির খাবারও নষ্ট করে দিচ্ছে তাঁরা।
 
এই সময় কাশ্মীরের দ্বায়িত্ব প্যারামিলিটারি ফোর্সের হাতে আছে। শেহলা রশিদ ট্যুইট করে লেখেন, শুধুমাত্র একজন জওয়ানের নৈতিক কথা বলায় তাকে কাশ্মীর থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও রাতে কাশ্মীরের মানুষদের ঘরে ঢুকে বাচ্চাদের তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ করেছে শেহলা রশিদ।

শেহলা রশিদ আরও একটি ট্যুইট করে লেখেন, শোপিয়ানে জিজ্ঞাসাবাদের নামে চারজনকে আর্মি ক্যাম্পে নিয়ে গিয়ে অমানবিক অত্যাচার করা হয়েছে। শেহলা রশিদের সমস্ত দাবিকে খারিজ করে ভারতীয় সেনা সমস্ত খবরকে ভুয়া বলে জানিয়েছে। সেনা জানায়, অসামাজিক সংগঠন দ্বারা এরকম অসত্য খবর আর গুজব ছড়িয়ে কাশ্মীরের মানুষকে উস্কে দেওয়া চেষ্টা করা হচ্ছে।

ট্যাগ: bdnewshour কাশ্মীর