banglanewspaper

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- মো. সাকের (২২) ও নুর আলম (৩০)।

বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার হোয়াইক্যং উরুবুনিয়া কাটাখাল এলাকায় এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে।

বিজিবির দাবি, নিহত মো. সাকের ও নুর আলম মাদককারবারি। মো. সাকের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরের ৭ নম্বর ক্যাম্পের সৈয়দ হোসেনের ছেলে ও নুর আলম টেকনাফ মুচনী রোহিঙ্গা শিবিরের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে। এ ঘটনায় তাদের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।

টেকনাফ-২ বিজিবির উপঅধিনায়ক মেজর শরীফুল ইসলাম জোমাদ্দার জানান, টেকনাফের হোয়াইক্যং উলুবুনিয়া গ্রামের পূর্বপাশে নাফ নদের কাটাখাল দিয়ে ইয়াবার একটি বড় চালান আসার গোপন খবর পাওয়া যায়।

এর ভিত্তিতে বিজিবির একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় নাফ নদে পার হয়ে একটি নৌকা কাটাখালের দিকে আসতে দেখে তাদের চ্যালেঞ্জ করে বিজিবি। এ সময় চোরাকারবারিরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে বিজিবিও পাল্টা গুলি করে।

একপর্যায়ে গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থল থেকে দুজনের গুলিবিদ্ধ মরদেহ পাওয়া যায়। পরে নিহতরা রোহিঙ্গা বলে জানা যায়।

ঘটনাস্থল থেকে ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, একটি দেশীয় তৈরি বন্দুক, তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ ও দুটি ধারালো কিরিচ উদ্ধার করা হয়।

নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান বিজিবির ওই কর্মকর্তা।

ট্যাগ: bdnewshour24 টেকনাফ বন্দুকযুদ্ধ