banglanewspaper

এদেশে এখন বঙ্গবন্ধুর ছবি ব্যবহার করে তার আদর্শের উল্টো কাজ হচ্ছে- এমন দাবি করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা, কারো একক পিতা নন। বঙ্গবন্ধু কোনো একক দলের নন, তিনি সবার।’

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে জাতীয় শোক দিবস নিয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ড. কামাল বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু যে আদর্শ আমাদের মাঝে রেখে গেছেন তার বাস্তবায়ন হচ্ছে না। বঙ্গবন্ধু কোনোদিনও ভাবতে পারেননি স্বৈরশাসন থাকবে। উনি চেয়েছিলেন, এ দেশে গণতন্ত্র থাকবে- নির্ভেজাল গণতন্ত্র। নামকাওয়াস্তে গণতন্ত্র নয়।’

আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানানো, তাকে স্মরণ করা, তাকে জাতির পিতার ভূমিকায় রাখার অর্থই হলো তিনি যে দায়িত্ব দিয়ে গেছেন তা যেন আমরা মনে রাখি, পালন করি। তার দেওয়া সেই দায়িত্বকে পবিত্র মনে করে আমরা যেন কাজ করে যাই। যারা সত্যিকার অর্থেই জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি, তারা জনগণের স্বার্থ রক্ষা করছে না। তারা ব্যক্তিস্বার্থ গোছাতে কাজ করছে। এটা দেখে মেনে নেওয়া যায় না। বঙ্গবন্ধু মেনে নেননি বলে তাকে জীবন দিতে হয়েছে। জনগণের স্বার্থ নিয়ে কোনোরকম আপস করেননি বলেই তাকে জীবন দিতে হলো।’

বর্তমান সরকারের অবস্থান তুলে ধরে ড. কামাল বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সবসময় বলতেন দেশের মালিক জনগণ। তাই তিনি সংবিধানে লিখে দিয়েছিলেন দেশের মালিক জনগণ এবং এ দেশের শাসনক্ষমতা জনগণের হাতে। কিন্তু খুবই দুঃখজনক বিষয় হলো দেশে নির্বাচন পদ্ধতিটাকে উল্টে দেয়া হয়েছে। টাকা-পয়সা, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপপ্রয়োগের মধ্য দিয়ে এখন একটা রায় দিয়ে দেয়া হয়। মানুষ যাকে ভোট দিতে চায় না, সে সামনে এসে বলে, আমি নির্বাচিত, আমরা রাষ্ট্রক্ষমতার মালিক।’

ড. কামাল বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু গণতন্ত্রের ব্যাখ্যা দিয়ে গেছেন। গণতন্ত্র মানে সব স্তরে জনগণ ক্ষমতার মালিক। যেখানে যেখানে সাংবিধানিক ক্ষমতা প্রয়োগ করা হবে-কেন্দ্রে, জেলায়, ইউনিয়নে, স্থানীয় পর্যায়ে। যিনিই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন।’

ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে শোক দিবসের অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাঈদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য মেসবাহ উদ্দীন আহমেদ, মোকাব্বির খান, মহসীন রশীদ, সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া প্রমুখ।

ট্যাগ: bdnewshour24 বঙ্গবন্ধু পিতা ড. কামাল