banglanewspaper

কাজের লোভ দেখিয়ে প্রথমে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশ থেকে কলকাতায় আনা, এরপর হাত ঘুরে ভারতের অন্য রাজ্যে মোটা রুপিতে বিক্রি করে দেওয়া। এই ছিল পাচার চক্রের উদ্দেশ্য।

কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দাদের তৎপরতায় পাচারের হাত রক্ষা পেল দুই বাংলাদেশি তরুণী। হাতে নাতে ধরা হয়েছে অভিযুক্ত দুই ভারতীয় পাচারকারীকেও।

দুই অভিযুক্তকেই পরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। তাদের দুইজনকেই আটক করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার হাবড়ার চোঙদা মোড় এলাকায়। আটক দুই পাচারকারী হলেন নির্মল সুতার (৫৯) এবং শিবু রায় (৫০)। উভয়েই ওই জেলার বাসিন্দা।

অন্যদিকে, উদ্ধার দুই তরুণীর একজন বাংলাদেশের ঢাকা-ময়মনসিংহ উদাইল বর্ধানী এলাকার বাসিন্দা, অন্যজনের বাড়ি ঢাকা-ময়মনসিংহ উত্তর বানাইল এলাকায়। প্রথমজনের বয়স ২৫, দ্বিতীয়জন ১৯ বছর বয়সী।

স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে হাবরা থানার চোঙদা মোড় এলাকায় যশোর রোড সংলগ্ন রাধাগোবিন্দ নামে একটি মিষ্টির দোকানে দুই তরুণী ও দুই ব্যক্তিকে দেখে সন্দেহ হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের। এরপর তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই দুই তরুণী সমস্ত ঘটনা স্থানীয় বাসিন্দাদের জানায়। অবস্থা বেগতিক দেখে যুবতীদের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দুই ভারতীয় ব্যক্তি দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

যদিও স্থানীয় বাসিন্দাদের তৎপরতায় দুইজনকেই ধরে ফেলা হয়। এরপর স্থানীয় মানুষরাই উত্তেজিত হয়ে অভিযুক্ত দুইজনকে মারধর করে বলে অভিযোগ। একসময় মারের হাত থেকে নিজেদের দোষ স্বীকারও করে তারা। পরে খবর দেওয়া হয় হাবড়া থানায়।

এরপর ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ দুই পাচারকারীকে গ্রেফতার করে এবং দুই বাংলাদেশী তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশের দাবি, আটক দুই পাচারকারী জেরায় তাদের অপরাধ স্বীকার করেছে। তারা এও জানায় বাংলাদেশ থেকে তাদেরকে অবৈধভাবে নদী পার করে কাঁটা তারের বেড়া টপকে ভারতে নিয়ে আসা হয়।

এরপর সীমান্ত লাগোয়া এক পাচার চক্রের হাত ধরে ওই দুই তরুণীকে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। দুই পাচারকারী চক্রের সদস্যকে জেরা করে আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আসে।

জানা গেছে, হাবড়া থেকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার পর দালাতের হাত ঘুরে ওই দুই বাংলাদেশি তরুণীকে ভারতের অন্য রাজ্যে বিক্রির উদ্দেশ্যে ছিল। কিন্তু তার আগেই পাচারকারীদের সেই পরিকল্পনা ভেস্তে গেল।

ট্যাগ: bdnewshour24 পাচারকারী উদ্ধার বাংলাদেশি তরুণী