banglanewspaper

ফেরিঘাটে তিন ঘণ্টারও বেশি সময় অপেক্ষায় থাকায় স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর ঘটনায় যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুর মণ্ডল নির্দোষ। ফেরির জন্য অপেক্ষার ফলে মৃত্যুর ঘটনায় যুগ্ম সচিবের দোষ খুঁজে পায়নি তদন্ত কমিটি। এ ঘটনায় ঘাটের ব্যবস্থাপক সালাম হোসেন, প্রান্তিক সহকারী খোকন মিয়া ও উচ্চমান সহকারী ফিরোজ আলমকে দায়ী করে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. রেজাউল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি এ প্রতিবেদন দাখিল করেন। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন- নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আব্দুস সাত্তার শেখ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা বিভাগের যুগ্ম সচিব তোফায়েল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ে প্রতিবেদনটি দাখিল করা হয়

বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চের নির্দেশে তদন্ত কমিটি গঠন করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার প্রতিবেদন দাখিলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্ধারিত সময়ের দুই ঘণ্টা দেরিতে ফেরি ছাড়ে। চিহ্নিত তিনজন তিতাসের মৃত্যুর দায় এড়াতে পারেন না। যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুর মণ্ডল ঘটনার জন্য দায়ী নয়। যুগ্ম সচিব জানতেন না যে, ফেরিঘাটে মুমূর্ষু রোগী আছে। কোনো ব্যক্তি বিশেষের জন্য কোনোভাবেই ফেরি দেরি করে ছাড়া যাবে না বলে প্রতিবেদনে সুপারিশ করা হয়েছে।

মাদারীপুর কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাটে স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর ঘটনায় গত ৩১ জুলাই অতিরিক্ত সচিবের নিচে নন, এমন পদমর্যাদার কর্মকর্তার নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠন করে তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে রুলে তিতাসের পরিবারকে কেন তিন কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

গত ২৫ জুলাই রাতে মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ঘাটে অসুস্থ তিতাসকে নিয়ে একটি অ্যাম্বুলেন্স ফেরিতে ওঠে। কিন্তু এটুআই প্রকল্পের যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুর মণ্ডলের জন্য প্রায় তিন ঘণ্টা ফেরি আটকে রাখা হয়। ফেরি ছাড়ার পর মাঝ নদীতে অ্যাম্বুলেন্সেই তিতাসের মৃত্যু হয়। তিতাস ঘোষ নড়াইল কালিয়া পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র।

ট্যাগ: bdnewshour24 ফেরি