banglanewspaper

একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে ভিন্ন ভিন্ন ফরমেটের খেলায় উইকেটের ডাবল হ্যাটট্রিকের কীর্তি গড়লেন শ্রীলঙ্কান ম্যাজিক বোলার লাসিথ মালিঙ্গা। তাঁর আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ১৩০ বছরে এমন কিছু দেখেনি। টানা চার বলে চার উইকেট। যাকে বলা হয় ‘ডাবল হ্যাটট্রিক’।

মালিঙ্গার অবশ্য এমন কীর্তি আগে ছিল ওয়ানডেতে। ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এই রেকর্ড গড়েছিলেন মালিঙ্গা। তবে সেটা ছিল দুই ওভারে।

এবার সেই একইরকম কীর্তি দেখালেন ক্রিকেটের সবচেয়ে ছোট ফরমেট টি-টোয়েন্টিতে। শুক্রবার পাল্লেকেলেতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে টানা চার বলে চার উইকেট নিয়েছেন মালিঙ্গা এবং সেটা একই ওভারে।

টি-টোয়েন্টি সিরিজ আগেই জিতে গেছে নিউজিল্যান্ড। এ ম্যাচ নিয়ে তাই খুব একটা আগ্রহ ছিল না কারও। শ্রীলঙ্কা প্রথমে ব্যাট করে মাত্র ১২৫ রান তোলার পর হয়তো অনেকে টিভির চ্যানেলও বদলে নিয়েছেন হয়ত। মালিঙ্গার ইতিহাস গড়াটা দেখা হলো না তাদের। প্রথম দুই ওভার ভালোই খেলছিল নিউজিল্যান্ড। বিনা উইকেতে ১৫ রান তুলে ফেলা দলটির মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ল তৃতীয় ওভারে।

তৃতীয় বলে কলিন মানরোকে আউট সুইঙ্গারে (মানরোর জন্য ভেতরে ঢোকা বল) বোল্ড করলেন মালিঙ্গা। তাতেই প্রথম বোলার হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে উইকেটের সেঞ্চুরি হয়েছে মালিঙ্গার।

পরের বলটিও আউট সুইঙ্গার ছিল। এলবিডব্লুর দাবিতে সাড়া দেননি আম্পায়ার। কিন্তু মালিঙ্গা রিভিউ নিতে দেরি করেননি। আউট হতেই হলো রাদারফোর্ডকে। পরের বলটি মোকাবিলা করতে নেমেছিলেন টানা দুই ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে জয় এনে দেওয়া কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। মালিঙ্গার এক ইয়র্কার তাঁকেও ফেরত পাঠাল ড্রেসিং রুমে, হ্যাটট্রিক! একমাত্র বোলার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে দুটি হ্যাটট্রিকের মালিক হলেন মালিঙ্গা।

ট্যাগ: bdnewshour24 ডাবল হ্যাটট্রি মালিঙ্গা