banglanewspaper

ববি প্রতিনিধি: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেমুরবিপ্রবি) কর্মরত সাংবাদিক ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলী সান’ এর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ও আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাতেমা তুজ জিনিয়াকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিকবৃন্দ।

গত ২২ আগস্ট প্রতিবেদন তৈরীর জন্য উপাচার্যের বক্তব্য নিতে তার কার্যালয়ে যান ‘ডেইলী সান’ পত্রিকার বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি ফাতেমা তুজ জিনিয়া। এ সময় উপাচার্য তাকে এর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া একটি স্ট্যাটাস ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ কী হওয়া উচিত? কারণ জানতে চান। ব্যাখ্যা মনঃপুত না হওয়ায় উপাচার্য তাকে গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করেন। 

এরপর গত ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক আদেশে ফাতেমা তুজ জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।
         
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিকবৃন্দ বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় একটি দেশের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। স্বাধীন দেশের স্বতন্ত্র প্রতিষ্ঠানের একজন শিক্ষার্থী হিসেবে স্বাধীন মত ও সংবাদ প্রকাশের অধিকার সকলের আছে। একটি সামান্য ফেসবুক স্ট্যাটাস কে কেন্দ্র করে বশেমুরবিপ্রবি প্রশাসন কতৃক সাংবাদিক জিনিয়াকে বহিষ্কার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ। যা একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছ থেকে কখনোই কাম্য নয়। সাংবাদিক জিনিয়াকে বহিস্কারের মাধ্যমে স্বাধীন মত ও সংবাদ প্রকাশের প্রতি হস্তক্ষেপ করা হয়েছে। অনতিবিলম্বে বশেমুরবিপ্রবি প্রশাসন সাংবাদিক জিনিয়ার বহিষ্কার আদেশ প্রত্যাহার করে ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের  স্বাধীন মত প্রকাশের পরিবেশ তৈরি করতে এবং ক্যাম্পাসে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান জানাচ্ছি।'

ট্যাগ: bdnewshour24 বশেমুরবিপ্রবি