banglanewspaper

মনির হোসেন জীবন, নিজস্ব প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার আটাবহ ইউনিয়নের গোসাত্রা ডাঃ জলিলুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁনের বিরুদ্ধে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ছাত্রকে মারধর, টাকার বিনিময়ে স্কুলে শিক্ষক নিয়োগ, এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার সময় অতিরিক্ত অর্থ আাদায়সহ নানান অভিযোগ উঠেছে।

এছাড়া অভিযোগ উঠেছে ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষক মজিবরের বিরুদ্ধেও। আর এসব ঘটনায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

স্থানীয় জনপদে বেশ পুরনো স্কুল হলো গোসাত্রা ডা: জলিলুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়। আশপাশের প্রায় কয়েকটি গ্রামের ছেলে-মেয়েরা পড়ালেখা করে এখানে। বর্তমান সরকারের আমলে স্কুলে বেশ কিছু উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। তবে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁনের অনিয়ম ও দুর্ণীতির কারণে দীর্ঘদিনের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে স্কুলের বলে অভিযোগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

সম্প্রতি স্কুলের শ্রেণী কক্ষ থেকে বের করে শিক্ষার্থীদের মারধরের বিষয়ে এলাকায় ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় মারধরের শিকার হওয়া এক স্কুল ছাত্র ও তার পরিবারের মৌখিক বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। 

এলাকাবাসী, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, চলতি মাসের ৯ তারিখে সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে স্কুল চলাকালীন সময়ে ৮ম শ্রেণীর কক্ষের পিছনের প্রবেশ পথ দিয়ে ঢুকে ৪ জন ছাত্রকে শ্রেণী কক্ষ থেকে বের করে দেয় অভিযুক্ত শওকত হাসান খাঁন। পরে ওই চার শিক্ষার্থীকে মারধর করে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁন।

মারধরের সময় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী আকাশকে মাটিতে ফেলে কোমড়ে এলোপাতাড়ি লাথি মারে শওকত। মারধরের সময় আকাশের দাঁত দিয়ে রক্ত বের হলে তাকে চিকিৎসার কোন ব্যবস্থা না করে রক্তাক্ত অবস্থায় স্কুলে আটকে রাখা হয়। পরে সভাপতি শওকতের নির্দেশনায় একজন গ্রাম্য চিকিৎসক ডেকে প্রাথমিক চিকিৎসা করানো হয় এবং এ ঘটনা কাউকে না জানানোর শর্তে আকাশকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁন ও ওই স্কুলের সহকারি শিক্ষক মজিবর রহমানসহ কয়েকজন ওই রাতের মারধরের শিকার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী আকাশের বাড়ি জালশুকা এলাকায় যায়।

এসময় বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য আকাশের পরিবারকে নানান ধরণের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। পরে আকাশের পরিবারকে চাল, কাপড় ও কিছু টাকা দিয়ে ঘটনা ধামাচাঁপা দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে চলে যাই সভাপতি ও তার সঙ্গে আসা লোকজন। 

এ ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন ভূক্তভোগী আকাশের পরিবার ও স্থানীয়রা। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁন এর বিচার দাবী করেন স্থানীয়রা।

এদিকে, গোসাত্রা ডাঃ জলিলুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁনের আরো বেশ কিছু অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্কুলে চাকরি দেওয়ার কথা বলে গোসাত্রা এলাকার আবু সাইদের কাছ থেকে ১ লাখ টাকা নেন ওই সভাপতি।

ভুক্তভোগী আবু সাঈদ বলেন, ভাইকে চাকরি দেয়ার কথা বলে স্কুলের সভাপতি ১ লাখ টাকা নেন। অনেকদিন ঘুরিয়ে ওই টাকা ফেরত দিয়েছে।

অপর এক ভুক্তভোগী ফরিদ আলী জানান, জমির জামেলা মিমাংসার কথা বলে শওকত হাসান ৫০ হাজার টাকা নেন। এরমধ্যে ২০ হাজার টাকা ফেরত দিলেও বাকী ৩০ হাজার টাকা এখনো দেয়নি।

এছাড়া শহিদুল রহমান রুবেলকে টাকার বিনিময়ে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ দেন তিনি। পরে আবার তাকে স্কুল থেকে বের করেও দেওয়া হয়।

অপরদিকে, এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের কথা বলে একাধিক অভিভাবকের কাছ থেকে অবৈধভাবে টাকা আদায়েরও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আরো নানা অনিয়ম, দূর্ণীতির অভিযোগ রয়েছে। এসব কারণে এলাকাবাসী অতিষ্ট, এসব থেকে মুক্তি চায় এলাকাবাসীসহ সর্বস্তরের জনগণ। 

গোসাত্রা ডাঃ জলিলুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশীষ কুমার গোপ জানান, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁন শ্রেণী কক্ষের পেছনের দরজা দিয়ে ঢুকে চারজন শিক্ষার্থীকে বের করে দেন এটা সত্য। কিন্তু তিনি তাদের মারধর করেছে এটা পরে জানতে পেরেছি। তবে শিক্ষার্থীদের মারধর করার কোন সুযোগ নেই বলেও জানান প্রধান শিক্ষক।

অভিযুক্ত স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শওকত হাসান খাঁন জানান, স্কুলের সহকারী শিক্ষক মজিবর রহমান তাকে জানায় আকাশসহ কয়েকজন স্কুলের ক্ষতি সাধন করতো। এ কারণে ওইদিন তাদের শাসন করেছি। তবে তাদের মারধর করা ঠিক হয়নি বলে তিনি জানান।

কালিয়াকৈর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, স্কুলের শিক্ষার্থীদের শ্রেণী কক্ষ থেকে বের করে মারধরের বিষয়টি আমাকে জানানো হয়নি। অন্যের কাছে বিষয়টি শুনে প্রধান শিক্ষককে ডেকে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে কোনো অনিয়ম পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

গোসাত্রা ডাঃ জলিলুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের অন্যান্য অনিয়ম ও দূর্ণীতির বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে এসব বিষয়ে অভিযোগ পেলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি জানান। 

ট্যাগ: bdnewshour24 অনিয়মে আখড়া গোসাত্রা ডাঃ জলিলুর রহমান বিদ্যালয়