banglanewspaper

সম্প্রতি অন্যতম দুটি তেল ক্ষেত্রের ওপর ড্রোন হামলার প্রতিশোধ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের গুরুত্বপূর্ণ এই দেশ। এই হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সূর মিলিয়ে আবারও ইরানকে দায়ী করেছেন সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-যুবায়ের।

যুবায়ের বলেন, হামলার জন্য যেসব অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো ইরানের। এই হামলার পূর্ণ তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

রিয়াদে এক সংবাদ সম্মেলনে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তারা মিত্র দেশগুলোর সাথে যোগাযোগ রাখছেন এবং পূর্ণ তদন্ত শেষ করার পর তারা যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন। তবে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলেননি তিনি।

তিনি বলেন, তেল ক্ষেত্রে হামলা চালানো হয়েছে উত্তর দিক থেকে। ইয়েমেনের দিক থেকে এই হামলা চালানো হয়নি। তবে ঠিক কোন জায়গা থেকে হামলা চালানো হয়েছে সেটি সুনির্দিষ্টভাবে বলেননি সৌদি আরবের প্রভাবশালী এই মন্ত্রী।

তবে যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের এমন অভিযোগ বারবার অস্বীকার করেছে ইরান। আমেরিকার তরফ থেকে সৌদি আরবে বাড়তি সৈন্য পাঠানোর ঘোষণার পর ইরানের একজন সিনিয়র সামরিক কর্মকর্তা বলেছেন, যেকোনো ধরনের আগ্রাসন ধ্বংস করার জন্য ইরান প্রস্তুত আছে।

সৌদির রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি আরামকোর অন্যতম দুটি তেলক্ষেত্রে হামলার কথা স্বীকার করে বার্তা দিয়েছে ইয়েমেনে সৌদি জোটের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা হুথি বিদ্রোহীরা।

এর আগে ইরানের রেভ্যুলুশনারি গার্ডের প্রধান মেজর জেনারেল হোসেইন সালমি সতর্ক করে বলেন, যেকোনো হামলা মোকাবেলার জন্য তারা প্রস্তুত আছেন। তিনি বলেন, সীমিত হামলা হলে সেটি সীমিত আকারে থাকবে না। হামলাকারীদের সম্পূর্ণ ধ্বংস না করা পর্যন্ত আমরা চালিয়ে যাব।

ট্যাগ: bdnewshour24 সৌদি