banglanewspaper

বর্তমানে আলোচিত ক্যাসিনোর অর্থ ক্ষমতাসীন দলের কোন কোন নেতার কাছে যেত সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তবে এই অর্থ বিএনপির অনেক নেতার কাছেও যেত বলে দাবি করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী। তিনি জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য আছে।

সোমবার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটি এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্যবাহী বাংলা বিভাগের ৭৩ জন মেধাবী শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে ১০ হাজার করে টাকা এবং শেখ হাসিনা রচিত পাঁচটি করে বই দেয়া হয়।

বিএনপিকে আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ হিসেবে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা (বিএনপি) দলের গঠনতন্ত্রের ৭ ধারা তুলে দিয়ে দণ্ডিত ব্যক্তিদের দলের নেতা নির্বাচিত করেছেন। একসময় হাওয়া ভবন করে তারা দুর্নীতির রাজত্ব করেছিল।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মুখে দুর্নীতির সমালোচনা মানায় না।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘অপরাধ করে আওয়ামী লীগ নেতারাও ছাড় পাচ্ছে না। বিএনপি যেটা পারেনি আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেটি পেরেছেন। প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতিবাজ-চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছেন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাজনীতিকদের বর্তমান চিন্তা পরবর্তী নির্বাচন আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চিন্তা হচ্ছে নতুন প্রজন্মের ভাগ্যের উন্নয়ন। কারণ শেখ হাসিনা দেশ ও দেশের মানুষের জন্য রাজনীতি করেন। সেজন্য তাকে আমরা রাষ্ট্রনায়ক বলি। শেখ হাসিনা বাঙালির আস্থার ঠিকানা। তিনি একজন দক্ষ এবং সাহসী সফল প্রধানমন্ত্রী। একজন সফল কূটনীতিক এবং সৎ প্রধানমন্ত্রীর নাম শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা নিজগুনে মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন। তার মৃত্যু নেই।’

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগ যেন খারাপ সংবাদের শিরোনাম না হয় সেজন্য ছাত্রলীগকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করতে হবে। রাজনীতিতে সৌজন্যবোধ থাকতে হবে কিন্তু বর্তমানে সেটি নেই। ছাত্রলীগকে সৌজন্যবোধের রাজসীতির ধারা ফিরিয়ে আনতে হবে।’

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এএফএম ফখরুল ইসলাম মুন্সীর সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. ভীষ্মদেব চৌধুরী প্রমুখ বক্তৃতা করেন। উপ-কমিটির সদস্য সচিব ও আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 বিএনপি