banglanewspaper

এনআরসি এখনও চালু হয়নি৷ হওয়ার কোনও ইঙ্গিতও নেই। তবু উত্তরপ্রদেশ পুলিশের কাছে নির্দেশ গেল বাংলাদেশীদের খুঁজে বের করার৷ উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকারের এমনই নির্দেশ৷ রাজ্য পুলিশকে বলা হয়েছে তল্লাশি অভিযান চালাতে।

রাজ্যের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার স্বার্থে এই বিদেশীদের খুঁজে বের করা জরুরি বলে জানাচ্ছে রাজ্য সরকার৷ তবে স্থানীয় বাসিন্দারা মনে করছেন অসমের এনআরসির উত্তরপ্রদেশ ভার্সন এই ব্যবস্থা৷ ফলে আতঙ্ক ছড়িয়েছে৷ তাহলে এবার কি স্থানীয় বাসিন্দাদের পালা? এমনই প্রশ্ন ঘুরছে উত্তরপ্রদেশের অন্দরমহলে।

এই প্রশ্নের উত্তর না মিললেও এই মর্মে সরকারি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে প্রতিটি জেলায়। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ডিজি এই চিঠি পাঠিয়েছেন৷ রাজ্য জুড়ে বাংলাদেশী ও অন্যান্য বিদেশীদের খুঁজে বের করে তাদের রাজ্য থেকে সরাতে হবে বলে উত্তরপ্রদেশ পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জানানো হয়েছে উত্তরপ্রদেশ থেকে এই বিদেশি তাড়াও প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করা হবে৷ পুলিশের উচ্চপদস্থ কর্তাদের নিয়ে তৈরি হয়েছে একটি কমিটি। যা নজরদারি চালাবে তথাকথিত বিদেশিদের ওপর৷ এনআরসি নিয়ে দেশ জোড়া বিতর্ক ও আতঙ্কের মাঝে উত্তরপ্রদেশ সরকারের এহেন নির্দেশ কার্যতই দিশেহারা বাসিন্দারা।

ছোট ছোট কলোনি ও বস্তিগুলির ওপর নজরদারি ইতিমধ্যেই শুরু করেছে পুলিশ। সন্দেহজনক ব্যক্তিদের থেকে চাওয়া হচ্ছে প্রয়োজনীয় নথি৷ নথি দেখাতে না পারলেই তাকে উত্তরপ্রদেশ ছেড়ে চলে যেতে হবে বলে নির্দেশিকায় জারি করা হয়েছে। এছাড়াও নজরদারি চলছে সরকারি কর্মীদের ওপর৷ যাতে ভুয়ো বা জাল নথি তৈরিতে সাহায্য না করা হয়, তা রুখতে রাজ্য সরকারের প্রতিটি বিভাগে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

জানানো হয়েছে বাংলাদেশীদের চিহ্নিত করতে পারলে, তাদের হাতের ছাপ নেওয়া হবে। এরপর তাদের সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য তুলে রাখা হবে পুলিশের কাছে। ভিন রাজ্য থেকে কাজ করতে আসা শ্রমিকদের ওপরেই বেশি নজরদারি চলবে বলে তথ্য মিলেছে।

গত মাসেই উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ অসমে এনআরসির প্রশংসা করেন। তিনি জানান, দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে এই ধরণের উদ্যোগ যথেষ্ট প্রশংনীয়৷ প্রতিটি রাজ্যেই এই ধরণের উদ্যোগ চালু করা উচিত।

ট্যাগ: bdnewshour24 বাংলাদেশি ইউপি পুলিশ রাজ্য