banglanewspaper

ছাইয়েদুল ইসলাম, চীন প্রতিনিধি: "নতুন ডিজাইন, নতুন প্রযুক্তি, নতুন জ্ঞান, নতুন জীবন" এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে চীনের ঝজিয়াং প্রদেশের তাইজহু শহরের অনুষ্ঠিত হয়ে গেল চারদিন ব্যাপী ১৯তম চায়না প্লাস্টিক এক্সিবিশন এন্ড কনফারেন্স ২০১৯। 

১১ই অক্টোবর সকাল থেকে ১৪ই অক্টোবর সন্ধ্যা পর্যন্ত চারদিন ব্যাপী এই প্রর্দশনীটি চীনের ব্যবসা নগরী খ্যাত ঝজিয়াং প্রদেশের তাইজহু শহরের  শহরে অবস্থিত তাইজহু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়। 

ডেপুটি গভর্নর, পৌর পার্টি কমিটির সেক্রেটারি চেন ইইজুন, পৌর পার্টি কমিটির উপ-সচিব, মেয়র ঝাং জিয়াওকিয়াং, সিনোপেক কেমিক্যাল সেলস কোংয়ের জেনারেল ম্যানেজার, লি ইয়ু, পেট্রোচিনা হুয়াডং রাসায়নিক বিক্রয় শাখার জেনারেল ম্যানেজার কুয়ে লিউফান যৌথভাবে এক্সিবিশন উদ্বোধন করেন।

প্রদর্শনী হলটি ৪০০০০ বর্গ মিটার এলাকা জুড়ে আচ্ছাদিত। যার মধ্যে রয়েছে ৩৫,০০০ বর্গমিটার অভ্যন্তরীণ প্রদর্শনী হল এবং ৫০০০ বর্গ মিটার বহিরাগত প্রদর্শনী হল। যেখানে ১৬০০ টি স্ট্যান্ডার্ড বুথ রয়েছ। প্রদর্শনী হলে প্রায় ৫০০টি পন্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্টান তাদের পন্য প্রদর্শন করে।

২০০১ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে চীন প্লাস্টিক ফেয়ারটি সফলভাবে ১৮ বছর ধরে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং এখন এটি দেশের বৃহত্তম এবং প্রভাবশালী বাণিজ্য মেলাগুলির একটি হিসাবে বিকশিত হয়েছে।

ঝাং জিয়াওকিয়াং তার বক্তব্যে বলেন, যে চীনের ছাঁচের আদি শহর এবং প্লাস্টিকের নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর রাজধানী হিসাবে তাইজু প্লাস্টিক পণ্যগুলির জন্য একটি বিশ্বমানের উচ্চ-স্তরের ছাঁচ শিল্প ক্লাস্টার এবং একটি গার্হস্থ্য প্রথম শ্রেণির উন্নত উৎপাদন কেন্দ্র তৈরি করার জন্য দৃঢ়সংকল্পবদ্ধ এবং ছাঁচ শিল্পের ক্লাস্টারিং, উচ্চ-স্তরের এবং বৌদ্ধিকরণের উৎসাহকে উৎসাহিত করে। প্লাস্টিকের ছাঁচ, প্লাস্টিকের যন্ত্রপাতি উৎপাদন, প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদন, কাঁচামাল বাণিজ্য এবং পণ্য বিক্রয় পর্যন্ত একটি সম্পূর্ণ প্লাস্টিক শিল্প চেন গঠন করেছে।

চীন প্লাস্টিক প্রসেসিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ঝু ওয়েঞ্জাও বলেছেন যে, বিশ্ব অর্থনীতি একটি নতুন ও পুরাতন গতিবেগ শক্তি রূপান্তর যুগে প্রবেশ করেছে। প্লাস্টিক প্রসেসিং শিল্পের সরবরাহ-দিকের কাঠামোগত সংস্কারের দিকে মনোনিবেশ করা উচিত। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি উদ্ভাবনকে চালিকা শক্তি হিসাবে নেওয়া উচিত। নতুন উপকরণ, নতুন প্রযুক্তি, নতুন সরঞ্জাম এবং নতুন পণ্যগুলিতে মনোনিবেশ করা এবং কার্যকরীকরণ। লাইটওয়েট, বাস্তুসংস্থান, মাইক্রো-ফর্মিং, বুদ্ধিমান বিকাশকে মেনে চলা উচিত। 

ইইউ বুইউ এক্সিবিশন সার্ভিস (এমি ফেয়ার) এর সহযোগিতায় আমেরিকা, ইউরোপীয়, আফ্রিকা, ইরান, মঙ্গোলিয়া, বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, তাজাকিস্থান, কাজাকিস্থান, সিরিয়া, ইয়েমেন, মিশর, ইরাক সহ ৬৫টি দেশ থেকে ১৮০ জন ক্রেতা প্রতিনিধিরা এক্সিবিশনে অংশগ্রহন করে।

এছাড়াও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পৌর দলীয় কমিটির সেক্রেটারি জেনারেল ঝো লিংসিয়াং, পৌর সরকারের মহাসচিব লিন জিনরং, সিটি নেতা ইউয়ান মাওরং, চেন ওয়েই এবং জিয়াং বিংফেং উপস্থিত ছিলেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 চীন