banglanewspaper

মনির হোসেন জীবন, নিজস্ব প্রতিনিধি: বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের পূর্বের সময় অর্থাৎ ষাটের দশক। কিশোর বয়সী জসিম উদ্দিন খাঁন। দেখেছেন স্বচক্ষে মহান মুক্তিযুদ্ধ। সান্নিধ্য পেয়েছেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনৈতিক যোদ্ধাদের।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে সাভারের আওয়ামী রাজনীতিতে প্রবেশ। এরপর নানা চড়াই উতরায় পেরিয়ে সাভারের আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে আসীন হয়েছেন। এভাবেই চলছে প্রায় ১৯ বছর।

বলছিলাম আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউনিয়নের গাজীবাড়ীর ঐতিহ্যবাহী আওয়ামী পরিবারের খাঁন বাড়ীর মৃত সদাগর আলী খাঁনের ছেলে জসিম উদ্দিন খাঁনের কথা। যার রন্ধ্রে রন্ধ্রে রয়েছে আওয়ামী রাজনৈতিক ধ্যান ধারণা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে সংগ্রাম ও সাংগঠনিক দক্ষতার মাধ্যমে দীর্ঘ সময় আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভীতকে মজবুত করেছেন।

সমসাময়িক বিষয় নিয়ে এই প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যাক্তির সাথে একান্ত আলাপ আলোচনা হয়। উঠে আসে শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নানা অজানা কথা। সেই সাথে বর্তমান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় শিমুলিয়া ইউনিয়নের নানা উন্নয়ন সম্পর্কেও কথা হয় তার সাথে। কথা হয় আসন্ন শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনের বিষয়েও।

শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এই সাধারণ সম্পাদক জানান, মহান মুক্তিযুদ্ধের আগে ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানের সময় বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে তৎকালীন ভাওয়াল গড়ের দায়িত্বে ছিলেন এ্যাডভোকেট আব্দুস সবুর। তার সাথে বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করতো তার (জসিম উদ্দিন খাঁনের) বড় ভাই জামাল উদ্দিন খাঁন, মমরেজ খাঁনসহ আরো অনেকে। পরে বড় ভাই জামাল উদ্দিন খাঁনের হাত ধরেই রাজনীনৈতিক বিভিন্ন মিছিল মিটিংয়ে যোগ দিতেন।

বড় ভাইয়ের পেছন পেছন থাকতে থাকতেই আর তার অনুপ্রেরণায় আওয়ামী রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন কিশোর বয়সী জসিম উদ্দিন। এরপর মহান মুক্তিযোদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহণ না করলেও বিভিন্নভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন মুক্তিযোদ্ধাদের। বাড়ি বাড়ি গিয়ে চাল তুলে বস্তায় ভরে ওই চাল দিয়ে আসতেন মুক্তিযোদ্ধাদের।

দীর্ঘ ৯ মাস পাক বাহিনীর সাথে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন হলো লাল সবুজের বাংলাদেশ নামক ভূখন্ডের। এরপর ১৯৭৫ সালেল ১৫ই আগস্ট একদল বিপদগামী সেনাসদ্যসের দ্বারা স্বপরিবারে শহীদ হন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এমনই স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন প্রবীন এই আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ব্যক্তি।

পরবর্তীতে দলের দু:সময়েও নিজ স্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে দলের হয়ে কাজ করে গেছেন তিনি। অনেক সময় নিজের জায়গা-জমি বিক্রি করেও দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

তিনি বলেন, ১/১১ এর সময় আমাদের সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন গৃহবন্ধী ছিলেন তখন তৃণমূলের নেতা হিসেবে জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে মোবাইল ফোনে আমার কথা বলার সুযোগ হয়েছিল। তখন আমি নেত্রীকে বলেছিলাম, কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীরা কি করবে আমরা জানি না, তবে আমরা তৃণমূলের নেতাকর্মীরা আপনার সাথে রয়েছি।

জসিম উদ্দিন খান বলেন, তৎকালীন বিএনপি জোট সরকারের আমলে আমি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকায় আমাকে হয়রানির জন্য চার চারটি চাঁদাবাজির মামলা দিয়েছিল। শত বাঁধা বিপত্তি ও নির্যাতন আর হয়রানি সহ্য করেও আমি আওয়ামী রাজনীতি থেকে সড়ে দাড়াইনি। আমার স্বর্বস্ব ত্যাগ করতে পারলেও আওয়ামী রাজনীতি ত্যাগ করতে পারব না, বঙ্গবন্ধুর সৈনিক হিসেবে আওয়ামী রাজনীতি বুকে লালন করেছি বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

জসিম উদ্দিন খান বলেন, ২০০১ সালে সরাসরি কাউন্সিলে ভোটের মাধ্যমে শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচত হই। পরবর্তীতে ২০১৬ সালেও আমিই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পাই। সাংগঠনিক দক্ষতার সাথে এখন পর্যন্ত ওই পদে থেকে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। এ ইউনিয়নে আমিই একমাত্র প্রবীন আওয়ামী লীগ হিসেবে রয়েছি বলেও তিনি যোগ করেন।

তিনি জানান, সামনেই আমাদের শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। ওই সম্মেলণে ইউনিয়নের যারা ওয়ার্ড পর্যায়ের সভাপতি-সাধারন সম্পাদক সহ অন্যান্য নেতাকর্মী রয়েছেন তারা আমাকে আবার কোথায় রাখবেন সেটা তারাই নির্ধারন করে দিবেন। আমার সাংগঠনিক দক্ষতার উপর আমার আস্থা রয়েছে। ওয়ার্ড নেতাকর্মীদের উপর আমার আস্তা রয়েছে। তারাই আমাকে আবার নির্বাচিত করবেন বলে আমার বিশ্বাস।

জসিম উদ্দিন বলেন, আমাদের মন্ত্রী মহোদয় মানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এবং ঢাকা-১৯ আসন এর এমপি ডা: এনামুর রহমান উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তার নেতৃত্বে শিমুলিয়া ইউনিয়ন উন্নয়নের দিক দিয়ে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে।

বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন মাদার অব হিউম্যানিটি ডিজিটাল বাংলাদেশের রুপকার জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সারাদেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে। নেত্রীর সার্বিক নির্দেশনা মোতাবেক শিমুলিয়া আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। নেতা-কর্মীরা উজ্জবিত।

ভবিষ্যতে নেত্রীর যেকোন সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান জানিয়ে শিমুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সবসময় পাশে থাকবেন বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ট্যাগ: bdnewshour24জসিম উদ্দিন