banglanewspaper

বেতন ভাতা বৃদ্ধিসহ ১১ দাবিতে ধর্মঘটে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। এতে অনিশ্চয়তার পড়েছে টাইগারদের ভারত সফর ও বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। এছাড়া অনিশ্চয়তায় পড়েছে এনসিএলও। 

রবিবার (২০ অক্টোবর) শেষ হয়েছে ঘরোয়া ক্রিকেটে এনসিএলের দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা। আগামী ২৪ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে তৃতীয় রাউন্ডের খেলা। 

কিন্তু হঠাৎই সবকিছু এলোমেলো হয়ে গেল। ক্রিকেট বোর্ডের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছে সব ক্রিকেটাররা। ১১ দফা দাবি দিয়েছেন তারা। দাবি না মানলে সব ধরনের ক্রিকেট বয়কটের হুমকিও দিয়েছেন তারা।

এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাকিব আল হাসান বলেন, এই ধর্মঘটে জাতীয় দল, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারসহ সবাই অন্তর্ভূক্ত এবং এটা আজকে থেকেই কার্যকর। জাতীয় লিগ তেকে শুরু করে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট বা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, সবগুলোই এর অন্তর্ভূক্ত। আলোচনা সাপেক্ষেই অবশ্যই সবকিছুর সমাধান হবে। দাবিগুলো যখন মানা হবে তখন আমরা আমাদের স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরে যাবো। দাবিদাওয়া না মানা পর্যন্ত সবধরণের ক্রিকেট বয়কট করেছেন খেলোয়াড়রা।   
টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির অধিনায়কের কথায় অনিশ্চিত হয়ে গেল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের আসন্ন সব কার্যক্রম। যার মধ্যে সবার আগে রয়েছে ২৪ অক্টোবর শুরু হতে যাওয়া এনসিএলের তৃতীয় রাউন্ড এবং ২৫ অক্টোবর থেকে হতে যাওয়া ভারত সফরের প্রস্তুতি ক্যাম্প।

নভেম্বরের শুরুতে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ভারত সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু আন্দোলনে সেটিও এখন অনিশ্চিত হয়ে গেল।  এমনকি পরিস্থিতির উন্নতি না ঘটলে আগামী ডিসেম্বরে হতে যাওয়া বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ- বিপিএলের সপ্তম আসরও হয়তো যথাসময়ে মাঠে গড়াবে না।

তবে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিশ্বকাপ খুব নিকটে। তাই তাদেরকে এই ধর্মঘটের আওতায় রাখা হয়নি।  

ট্যাগ: bdnewshour24 বিপিএল ভারত