banglanewspaper

মিরপুরে তারকা ক্রিকেটারদের সারিতে তাকে না দেখে অবাক হয়েছিলেন অনেকেই। কারণ মাশরাফি বিন মতুর্জা দীর্ঘ সময় ধরেই নেতৃত্ব দিচ্ছেন দেশের ক্রিকেটকে। অনুজ আর সমবয়সী ক্রিকেটারদের কাছে তিনি আস্থার অন্যনাম। সবাইকে আগলে রাখেন তিনি। অথচ এই মানুষটিই নেই মিরপুরের শেরেবাংলায়। সোমবার ওয়ানডে অধিনায়ককে ছাড়াই ধর্মঘটে গেলেন ক্রিকেটাররা।

মোট ১১ দাবি উত্থাপন করেছেন সাকিব আল হাসানরা। দেশের শীর্ষ পর্যায়ে খেলা ক্রিকেটাররা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) সাফ জানিয়ে দিয়েছেন-এসব দাবি পূরণের নিশ্চয়তা না পেলে জাতীয় দল এবং প্রথম শ্রেণীর সব ক্রিকেটাররা কোন ধরনের ক্রিকেটে অংশ নেবেন না। মিরপুরে বিসিবি কার্যালয়ে ক্রিকেটাররা সোমবার ১১ দফা দাবি জানান।

দাবির মধ্যে আছে চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়ানো। খেলোয়াড়দের বেতন বৃদ্ধি, বিসিবির গ্রাউন্ডসম্যান থেকে শুরু করে অন্যান্য বেতনভুক্ত কর্মীদের আর্থিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি। ঘরোয়া ক্রিকেট বিশেষ করে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিভাগ ক্রিকেটে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা অনিয়ম ও দুর্নীতির অবসান প্রসঙ্গ।

কিন্তু প্রশ্ন উড়ছিল তাহলে মাশরাফি কোথায়? ক্ষমতাসীন দলের সংসদ সদস্য কি একমত নন এই দাবির সঙ্গে? সোমবার রাতে এই প্রশ্নের উত্তর মিলল।

নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে মাশরাফি জানালেন, এমন কর্মসূচীর কথা জানতেন না তিনি। কেউ তাকে এই প্রসঙ্গটা জানায়নি। জানলে ঠিকই সাকিব, তামিম ইকবাল আর মুশফিকুর রহিমদের সঙ্গে এক সারিতে থাকতেন তিনি।

ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে মাশরাফির যা লিখেছেন তা হুবহু তুলে ধরা হলো- পাঠকদের জন্য।

‘অনেকেই প্রশ্ন করছেন যে, দেশের ক্রিকেটের এমন একটি দিনে আমি কেন উপস্থিত ছিলাম না। আমার মনে হয়, প্রশ্নটি আমাকে না করে, ওদেরকে করাই শ্রেয়। এই উদ্যোগ সম্পর্কে আমি একদমই অবগত ছিলাম না। নিশ্চয়ই বেশ কিছু দিন ধরেই এটি নিয়ে ওদের আলোচনা ছিল, প্রক্রিয়া চলছিল। কিন্তু এ সম্পর্কে আমার কোনো ধারণাই ছিল না। সংবাদ সম্মেলন দেখে আমি ওদের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে পেরেছি।

ক্রিকেটারদের নানা দাবির সঙ্গে আমি আগেও একাত্ম ছিলাম, এখনও আছি। আজকের পদক্ষেপ সম্পর্কে আগে থেকে জানতে পারলে অবশ্যই আমি থাকতাম।

মিডিয়ায় ওদের খবর দেখার পর থেকে হাজারবার আমার মাথায় এই প্রশ্ন এসেছে, যে কেন আমাকে জানানো হলো না। অনেকে আমার কাছে জানতেও চেয়েছেন। কিন্তু আমি নিজেও জানি না, কেন জানানো হয়নি।

তবে আমার উপস্থিত থাকা কিংবা না থাকার চেয়ে, ১১ দফা দাবি বাস্তবায়িত হওয়াই বড় কথা। সবকটি দাবিই ন্যায্য, ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের মঙ্গলের জন্য জরুরী। আমি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, ১১ দফা দাবি শান্তিপূর্ণ ভাবে বাস্তবায়িত হওয়ার পক্ষে আছি, থাকব।’

ট্যাগ: bdnewshour24 মাশরাফি ক্রিকেট