banglanewspaper

নিমের ফল থেকে সরাসরি নিম তেল সংগ্রহ করা হয় বলে এই তেলের বিশুদ্ধতা সম্পর্কে সন্দেহের অবকাশ নেই। তিক্ত স্বাদের এই উপাদনটি আপনার শরীরের অধিকাংশ সমস্যার স্থায়ী সমাধান দিয়ে থাকে।

নিমের তেলের কয়েকটি উপকারিতা:

১। ত্বকের যত্ন: নিম তেলের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ত্বকে সহজে বার্ধক্যের ছাপ পড়তে দেয় না। নিয়মিত নিম তেল ব্যবহার করলে ত্বকের বলিরেখা ও বার্ধক্যজনিত যাবতীয় দাগ দূর করা সম্ভব। 

২। চুলের যত্ন: চুলের মাথার ত্বকে নিয়মিত নিম তেল ব্যবহারের মাধ্যমে খুশকি থেকে দূরে থাকা সম্ভব। আপনার ব্যবহার করা শ্যাম্পুতে কয়েক ফোঁটা নিমের তেল মিশান। এবার চুলে শ্যাম্পু মেখে ২-৩ মিনিট অপেক্ষা করুন। 

৩। চুলের খুশকি দূর করতে, উকুন থেকে রেহাই পেতে ও চর্মরোগে নিম তেলের সঙ্গে নারিকেল তেল মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

৪। নিম তেলের সঙ্গে পানি মিশিয়ে মুখের ব্ল্যাকহেডে লাগাতে পারেন। এটি প্রতিদিন লাগালে ব্ল্যাকহেড থেকে পরিত্রাণ পাবেন ও এটি ব্ল্যাকহেড ফিরে আসা প্রতিরোধ করবে।

৫। চুল ঝরা: নিম তেল রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। এর ফলে চুলের দ্রুত বৃদ্ধি ঘটে। চুল যদি পাতলা হয়ে যায় তাহলে নিমতেল ব্যবহার করুন। রোজ নিমতেল ব্যবহার করলে চুল অনেকবেশি ঘন, লম্বা আর মজবুত হবে।

৬। শুষ্ক চুল: সুন্দর চুলের জন্য খুবই উপকারি নিম তেল। চুলকে নরম রাখে এবং একটা সুন্দর ফুরফুরে লুক দেয়।

৭। খুশকির সমস্যা: খুশকির সমস্যা সমাধানে নিমতেল খুব ভালো কাজ করে।

৮। উকুনের সমস্যা: নিমতেল ব্যবহারে উকুনের সমস্যার সমাধান পাওয়া যাবে।

৯। চুলে জট: নিম তেল চুলকে কান্ডিশনিং করে। প্রাকৃতিক কন্ডিশনারের কাজ করে। তার ফলে চুলে জট পড়তে দেয়না।

ট্যাগ: bdnewshour24 নিম