banglanewspaper

বহুল আলোচিত ভারতের ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ মামলার রায় ঘোষণা করেছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। এতে হিন্দুদের জয়জয়কার। আগের রায়ে বাবরি মসজিদের জমি তিন ভাগ হলেও সুপ্রিম কোর্টের রায়ে পুরো জমিই পেল হিন্দুরা। সেখানে তৈরি করা হবে রামমন্দির। তবে মসজিদ নির্মাণে বিকল্প জমি বরাদ্দের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

শনিবার (৯ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈরের নেতৃত্বাধীন ৫ সদস্যের আপিল বেঞ্চ এই রায় দেন। বেঞ্চে রয়েছেন বিচারপতি এসএ বোবদে, ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, অশোক ভূষণ এবং এস আব্দুল নাজির।

বাবরি মসজিদের পুরো জমি হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি ‘রাম জন্মভূমি ন্যাস’কে বুঝিয়ে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে ১৯৯৩ সালের অযোধ্যা আইনের আওতায় তিন মাসের মধ্যে কেন্দ্রকে ট্রাস্ট গড়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আদালত বলেন, ‘মসজিদের মাটির নিচে মন্দির বা মসজিদের কোনও অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। বিশ্বাসের উপর দাঁড়িয়ে জমির মালিকানা ঠিক করা সম্ভব নয়। তবে কাঠামো থেকেই কোনও দাবি করা যায় না।’

বাবরি মসজিদ ভাঙার ১০ বছর ২০০২ সালে এলাহাবাদের উচ্চ আদালতে অযোধ্যার ওই জায়গাটি নিয়ে মামলা করে ‘হিন্দু মহাসভা’ ও হিন্দু সন্ন্যাসীদের সংস্থা ‘নির্মোহী আখড়া’ ও  ‘মুসলিম ওয়াকফ বোর্ড’।

মামলা দায়ের ৮ বছর পর ২০১০ সালে ওই মামলার রায় দেওয়া হয়। রায়ে বাবরি মসজিদের ২.৭৭ একর জায়গা তিন পক্ষের মধ্যে সমান তিন ভাগে ভাগ করে দেয়া হয়।  মুসলিম সম্প্রদায় একাংশ, বাকি দুই অংশের মধ্যে মূল যে অংশে বাবরি মসজিদ ছিল, সেটি পাবে ‘হিন্দু মহাসভা’।  ২০১১ সালে হিন্দু-মুসলিম সব পক্ষই ওই রায় প্রত্যাখ্যান করে ভারতের সর্ব্বোচ্চ আদালতে আপিল করে। আজ সেই মামলারই চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করা হলো আজ।

১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরে কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল শিবসেনার হিন্দু কর্মীরা ষোড়শ শতকে নির্মিত ওই ঐতিহাসিক মসজিদটি ভেঙে ফেলে। এতে ভারত জুড়ে হিন্দু-মুসলিমদের মধ্যে ভয়াবহ দাঙ্গা দেখা দেয়। এতে উভয় পক্ষের হাজার হাজার মানুষ নিহত হোন। তবে নিহতদের বেশির ভাগই মুসলিম। ভারতের হিন্দুদের হামলায় দেশটির হাজার হাজার মুসলিমদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়।
 

ট্যাগ: bdnewshour24 বাবরি মসজিদ