banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ শ্রীপুর(গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ ফুটফুটে শিশু দিয়া রানী মাত্রই হামাগুড়ি দিতে শিখেছে। দুপুরে মা বৃষ্টি রানী ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। এসময় ঘরের বারান্দায় আরেক শিশুর সাথে খেলতে ছিল দিয়া। ওই শিশুটি বাড়ীর বাইরে চলে গেলে বারান্দায় রাখা পানি ভর্তি বালতির মধ্যে হামাগুড়ি দিয়ে পড়ে যায় দিয়া।

পরে স্বজনরা বালতির পানিতে ডুবন্ত অবস্থায় উদ্ধার করে তাকে। এমন এক মর্মান্তিক শিশু মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে গাজীপুরের শ্রীপুরে। এ ঘটনায় নিহতের মা বৃষ্টি রানী ও শিশুর নানীকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

৮ নভেম্বর শুক্রবার শ্রীপুর উপজেলার রাজাবাড়ী ইউনিয়নের লক্ষিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত দিয়া রানী মন্ডল (১১মাস) কালিগঞ্জ জেলার ধনপুর গ্রামের মৃত বিপ্লব চন্দ্র মন্ডলের মেয়ে। বর্তমানে মায়ের সাথে রাজবাড়ী ইউনিয়নের লক্ষিপুর গ্রামে নানার বাড়ীতে থাকতো।

নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে  শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রাজিব কুমার সাহা জানান, গত কয়েকমাস আগে স্বামী বিপ্লব দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত হওয়ার পর দিয়াকে নিয়ে বৃষ্টি রানী মন্ডল বাপের ভিটায় থাকতেন। শুক্রবার দুপুরে নানী পাশের বাড়ীতে পানী আনতে গেলে বারান্দায় থাকা শিশু দিয়া রানী খেলতে খেলতে হামাগুড়ি দিয়ে ওই বালতির পানিতে পড়ে যায়। পরে স্বজনেরা তাকে উদ্ধার করে রাজেন্দ্রপুর মর্ডান হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। খবর পেয়ে হাসপাতাল হতে শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, ‘শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে  ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে বলেও জানান তিনি।’

ট্যাগ: bdnewshour24 মা শ্রীপুর