banglanewspaper

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস চক্রের ১০ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। শনিবার বিকেল ৩ টায় 'এ' ইউনিটের পরীক্ষার পূর্বে এই সিন্ডিকেটের ২ সদস্যকে সর্বপ্রথম আটক করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন। এরপর একে একে অভিযান চালিয়ে বাকী সদস্যদের আটক করা হয়। 
 
পূর্ব তথ্য অনুসারে এই অভিযান চালায় রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার একটা টিম। পরীক্ষার দুই ঘণ্টা আগে প্রশ্নের সমাধান দেওয়ার খবরে অভিযান চালালে ৫ জন পরীক্ষার্থী সহ হাতেনাতে প্রশ্নফাঁস চক্রের ২ সদস্য আটক হয়।

এর আগে শুক্রবার রাত ১১ টার দিকে শিমুলের (ছদ্মনাম) ছোট ভাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়ে দেবার জন্য ফোনালাপে চুক্তিবদ্ধ হয় রনি নামের আটককৃত শিক্ষার্থী। এসময় সে (রনি) ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে 'এ' ইউনিটের পরীক্ষার দুইঘন্টা আগে প্রশ্নের সমাধান করিয়ে দিবেন বলে আশ্বস্ত করেন। এরপর শিমুল ব্যাপারটি যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অবগত করে। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী রনির সাথে শিমুল দেখা করতে গেলে অভিযান চালায় রাষ্ট্রীয় একটি গোয়েন্দা সংস্থা এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এসময় বিজয় দিবস হলের ৫১২ নাম্বার রুম থেকে জমাকৃত পরীক্ষার্থীদের কাগজপত্রের মূল কপি এবং ৫ পরীক্ষার্থীসহ সিন্ডিকেটটির সদস্যদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আটককৃত সিন্ডিকেটের ৫ সদস্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। তারা হলেন- সিভিল ইন্জিনিয়ারিং বিভাগের রণি খান, একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের নেয়ামুল, ম্যানেজমেন্ট বিভাগের নয়ন এবং আইন বিভাগের অমিত গাইন এবং মানিক মজুমদার।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রাজিউর রহমান জানান, তাদেরকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে তুলে দেয়া হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 বশেমুরবিপ্রবি