banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: ১৮ নভেম্বর সোমবার ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার (পিইসি) বাংলা বিষয়ে পরীক্ষার আগ মুহূর্তে টেপির বাড়ী (ছাতির বাজার) উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী সিয়ামকে নিয়ে আসেন তার মা আছমা পারভিন। সিয়ামকে পরীক্ষার হলে রেখে সিটে বসিয়ে মূল ফটকে যেতে না যেতেই মাটিতে ঢলে পড়ে সেখানেই মৃত্যু হয় মা আছমা পারভিনের। ওইদিন কেন্দ্রের বাইরে এবং আজকে কবরে মায়ের লাশ রেখে পরীক্ষা দিয়েছে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার পিইসি পরীক্ষার্থী সিয়াম কাজী।

১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। 

সিয়াম কাজী (১০) উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের তেলিহাটি গ্রামের মিলন কাজীর ছেলে। সে সাইটালিয়া দাখিল মাদরাসার ৫ম শ্রেনীর ছাত্র। 

জানা যায়, গতকাল পরীক্ষা কেন্দ্রের মূল ফটক থেকে আছমাকে উদ্ধার করে প্রথমে  মাওনা চৌরাস্তার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে ও পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে ১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে মায়ের লাশ কবরে রেখে নির্ধারিত বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং বিজ্ঞান পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে সিয়াম কাজী। তবে সাথে মায়ের পরিবর্তে আজকের সঙ্গী হিসেবে আসেন তার নানা। 

সাইটালিয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক রইছ উদ্দিন জানান, মঙ্গলবার সকাল ৯টায় সিয়াম কাজীর মায়ের জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। মায়ের  জানাজায় অংশ নিয়ে পরে লাশ কবরে রেখে পরীক্ষার হলে উপস্থিত হয় সে। এতটুকু ছেলেকে এভাবে দেখে সবার চোখেই পানি চলে আসে। আল্লাহ যেন তার মাকে জান্নাতুল ফেরদৌস নসিব করেন।

শ্রীপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, বিষয়টি বেদনাদায়ক। সিয়ামের পড়াশোনার বিষয়ে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস ও ওই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগীতা করা হবে। আল্লাহ যেন তাকে  মায়ের মৃত্যুর শোক সইবার তৌফিক দান করে এবং তার মাকে জান্নাত দান করে এ কামনা করছি।

ট্যাগ: bdnewshour24 শ্রীপুর