banglanewspaper

মাগুরা প্রতিনিধি: পালঙ্কজুড়ে দৃষ্টিনন্দন কারুকাজ। শয্যার আয়তন ৪২ বর্গফুট। পালঙ্কের পায়ের দিকের উপরিভাগে আছে একটি ৩২ ইঞ্চি টেলিভিশন। ওপরে চারপাশে রয়েছে চারটি ছোট আকৃতির বৈদ্যতিক বাল্ব। খাটে ওঠার জন্য আছে কাঠের সিঁড়ি। চারপাশে বাংলার প্রকৃতি ও পরিবেশের নানা শৈল্পিক চিত্রকর্ম। এক একটি পালঙ্কের দাম হাকানো হচ্ছে সাড়ে ৫ লাখ টাকা।

মাগুরা ফার্নিচার মেলায় কুষ্টিয়ার কুমারখালি উপজেরার পান্টি গ্রামের কাঠমিস্ত্রি ইয়াছিন মোল্যা আকর্ষণীয় পালঙ্ক দুটি নিয়ে এসেছেন । পালঙ্ক দুটির নাম দিয়েছেন ‘রাজপঙ্খি’ ও ‘ময়ূরপঙ্খি’। মাগুরা শহরের নতুন বাজার ছানার বটতলায় আয়োজিত মেলায় শোভা পাচ্ছে এ দুটি পালঙ্ক। প্রতিুটির দাম চাইছেন সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা।

প্রতি বছর দূর্গাপূজার এক মাস পর মাগুরায উদযাপিত হয় কাত্যায়ানি পূজা। এই পূজা উপলক্ষ্যে শহরের ছানার বটতলায় বসে মাসব্যাপী ফার্নিচার মেলা।

বিশেষ করে নিন্ম ও মধ্যবিত্ত পরিবারের ক্রয় ক্ষমতা বিবেচনায় রেখে মাগুরাসহ বিভিন্ন জেলার ফার্নিচার ব্যবসায়ীরা এখানে খাট, পালঙ্ক, সোফা, শোকেস, ড্রেসিং টেবিল নিয়ে আসেন বিক্রির জন্য। সর্বনিন্ম তিন হাজার থেকে শুরু করে লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয়। এ বছর এই মেলার ‘রাজপঙ্খি’ ও ‘ময়ূরপঙ্খি’ পালঙ্ক দুটি অন্যতম আকর্ষণ । 

পালঙ্ক দুটির মালিক ইয়াছিন মোল্যা জানান, শখের বসেই সম্পূর্ণ কাঠাঁল কাঠের তৈরি এই পালঙ্ক দুটি তৈরি করেছেন তিনি। কাঠ লেগেছে ৫০ ঘনফুট। গড় মজুরি, মেলায় আনা নেয়া, খাকা-খাওয়া খরচ ও অন্যান্য উপকরণ খরচ মিলিযে পালঙ্কপ্রতি তার গড় খরচ তিন লাখের বেশী। পালঙ্ক দুটি তৈরি করতে প্রায় এক বছর সময় লেগেছে তার। পালঙ্কগুলোকে আকর্ষণীয় করতে লাগানো হয়েছে ৩২ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন, ৪টি ফ্যান, ৯টি বাল্ব ও ১টি করে কাঠের সিঁড়ি।

প্রতিদিনই মেলায় আকর্ষণীয় পালঙ্ক দুটি দেখতে আসছেন দর্শনার্থীরা। এ পর্যন্ত একটি পালঙ্কের দাম উঠেছে তিন লাখ টাকা। অন্তত সাড়ে চার লাখ টাকা দাম পেলে এ পালঙ্কটি বিক্রি করবেন জানান ইয়াছিন মোল্যা।

আয়োজক কমিটির সদস্যরা জানান, প্রতিবছর কাত্যায়ানী পূজা উপলক্ষে ছানার বটতলায় মাসব্যাপী এই ফার্ণিচার মেলা চলে। বিভিন্ন এলাকার মানুষ মেলায় কেনাকাটা করতে আসে। এবারের মেলার অন্যতম আকর্ষন এই ‘রাজপঙ্খি’ ও ‘ময়ূরপঙ্খি’ পালঙ্ক দুটি।

ট্যাগ: bdnewshour24 দৃষ্টিনন্দন রাজপঙ্খি ময়ূরপঙ্খি পালঙ্ক