banglanewspaper

মজিবুর রহমান, কেন্দুয়া (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি: অস্তহীন সমস্যা জর্জড়িত নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার সরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। গত রোববার বিদ্যালয়ে সরজমিনে গেলে বহুমার্ত্রিক সমস্যার কথা জানায় শিক্ষক ও অভিভাবকরা।

সুত্র জানায়, ১৯৩৮ সালে স্থানীয় বিদ্যুৎসাহীদের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় সরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টি প্রাচীন হলেও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উদাসীনতার ফলে আজো অবকাঠামো তেমন উন্নয়ন হয়নি।

অবকাঠামো বলতে পুরাতন টিনসেড একটি ঘর আর দুই কক্ষ বিশিষ্ট্য একটি পাকা ভবন। পাকা ভবন নির্মাণের বেশি দিন না হলেও বৃষ্টি বাদলের দিন চাদ চুয়ে পানি পড়ে ভিজে যায় বই-খাতা। চাদ চুয়ে পানি পড়ার ফলে অফিস কক্ষটি স্যাঁত স্যাঁতে অবস্থা। নেই বাউন্ডারী ওয়াল। অসমতল খেলা মাঠ। নেই পয়নিষ্কাশনের ব্যবস্থা।

বিশুদ্ধ খাবার পানিও রয়েছে সংকট। একটি মাত্র টিউবওয়েল অনেক সময় থাকে অকেজো। বিদ্যালয়ে প্রায় আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থী এসব নানা অভিযোগ মাথায় নিয়ে প্রতিদিন শিক্ষাদান করতে শিক্ষকদের। বিদ্যালয়টিতে ৫ জন শিক্ষক কর্মরত থাকলেও বাস্তবে আছে মাত্র ৩ জন। অন্য দুই জন প্রেষণে চলে গেছেন অন্যত্রে। প্রধান শিক্ষকের পদটি দীর্ঘদিন ধরে শুন্য রয়েছে। এসব অন্তহীন সমস্যার ভেড়াজালে বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুল হক জানান, বিদ্যালয়ের সমস্যার শেষ নেই। প্রায় আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থী সামলাতে আমরা ৩ জন শিক্ষকের খুব কষ্ট হয়। দুইজন প্রেষণে চলে যাওয়ায় এই বছরটা খুবই কষ্টে যাচ্ছে। প্রশাসনিক কাজে আমার প্রায় সময়ই উপজেলায় যেতে হয় অফিসের কাজ শেষ করতে করতে দিনটাই চলে যায়। বৃষ্টির দিনে দুই ঘরে চাদ চুয়ে পানি পড়ে। মাঠ, টিউবওয়েল, ওয়াশরুমের অভিযোগ করে শিক্ষার্থীরা।

বাউন্ডারী ওয়াল না থাকায় গরু-ছাগলসহ বিভিন্ন পশু বৃষ্টা প্রতিদিন পরিস্কার করতে হয়। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষে সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার জিয়াউল হক জানান,বেশি দিন হয়নি আমি কেন্দুয়া এসেছি। বিদ্যালয়টি বিভিন্ন সমস্যার কথা জানতে পেরে পরিদর্শন করেছি সমস্যাগুলো সমাধানে চেষ্টা করছি।

ট্যাগ: bdnewshour24 কেন্দুয়া