banglanewspaper

রাজধানীর টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে আগামী ১০ জানুয়ারি আম-বয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হবে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে তা শেষ হবে ১২ জানুয়ারি। মাঝে চারদিন বিরতির পর দ্বিতীয় পর্ব ১৭ জানুয়ারি শুরু হয়ে ১৯ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্যেদিয়ে শেষ হবে দ্বিতীয় পর্ব।

এ দিকে ইজতেমা উপলক্ষে বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মুসল্লিরা স্বেচ্ছাশ্রমে চালিয়ে যাচ্ছেন ময়দানের সকল কাজ। মুসল্লিরা ময়দানে মাটিকাটা, ময়লা আবর্জনা পরিস্কার, খুঁটি গাড়া, সামিয়ানা তৈরি, চট বাধাই, বয়ান মঞ্চ, বিদেশিদের কামরা নির্মাণ, ছাতা মাইক স্থাপন, বিদুৎ লাইন সংযোগসহ বিভিন্ন কাজ করছেন।

জানা গেছে, গত বছরের মতো এবারও প্রথম পর্বে মাওলানা জোবায়ের পন্থী মুসল্লিরা টঙ্গী ময়দানে ইজতেমার আয়োজন করবে। এরপর মাঝে চারদিন বিরতি দ্বিতীয় পর্বে মাওলানা সা’দ আহমাদ কান্ধলবী অনুসারীরা ইজতেমা আয়োজন করবে। আগত সব জেলার মুসল্লিরা ৮৪ খিত্তায় অবস্থান করবেন। মুসল্লিদের নিরাপত্তায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

ঢাকা আমিন বাজার এলাকা থেকে আসা জামিয়া ইসলামীয়া আলিম উদ্দিন মাদ্রাসার কিতাবখানার এক ছাত্র আরাফাত হোসেন বলেন, ইজতেমা ময়দানে আল্লাহর ইবাদত পালনের উদ্দেশ্যে লাখ লাখ মুসল্লি এখানে সমবেত হয়। সেই মুসল্লিদের খেদমতে তাদের থাকার সুব্যবস্থা করার জন্য আমরা স্বেচ্ছায় কাজ করে যাচ্ছি। এতে আল্লাহ তায়ালা খুশি হলে কাল কিয়ামতের মাঠে এর উছিলায় নাযাতের ব্যবস্থাও হয়ে যেতে পারে, সে কারণেই আমরা দল বেধে এখানে কাজ করছি।

ময়দানের মুরব্বি মাওলানা জোবায়ের অনুসারী ময়দানের মুরব্বি ডা. কাজী সাহাবুদ্দিন বলেন, ইজতেমার দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই কাজের গতি বাড়ছে। ইনশাল্লাহ ১০তারিখের পূর্বেই সকল প্রস্তুতি শেষ হবে।

এ ব্যাপারে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী স্থানীয় জাহিদ আহসান রাসের বলেন, গতবারে ন্যায় এবারও ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের সেবা নিশ্চিত করতে এবং ইজতেমা সফল করতে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 বিশ্ব ইজতেমা