banglanewspaper

আসন্ন রমজান মাসকে লক্ষ্য করে অসাধু ব্যবসায়ীচক্র রমজাননির্ভর ছয়টি পণ্যের দাম তিন মাস আগেই বাড়াতে শুরু করেছে।রমজানে যাতে নতুন করে বাড়ানোর প্রয়োজন না পড়ে এই কারনে মূল্যবৃদ্ধি করা হয়েছে।

মূল্যবৃদ্ধি হওয়া পণ্যগুলো হচ্ছে- ছোলা, ভোজ্যতেল, ডাল, খেজুর, আদা ও রসুন। আর পেঁয়াজের বাজার তো কয়েক মাস ধরেই চড়া। এ বছর রমজানেও অসাধু ব্যবসায়ীরা বাড়তি দরে খাদ্যপণ্য কিনতে সাধারণ মানুষকে বাধ্য করবেন - এ নিয়ে ক্রেতাদের মনে শঙ্কা কাজ করছে।

রাজধানীর কয়েকটি বাজারে দেখা গেছে, রমজানে অতিব্যবহৃত পণ্যের মধ্যে ছোলা, ডাল, ভোজ্যতেল ও খেজুর এক মাসের ব্যবধানে কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে।

রসুন ২০ থেকে ৪০ টাকা এবং আদা ১০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে। 

বিভিন্ন কৌশল ও অজুহাতে অসাধু ব্যবসায়ী চক্র এসব পণ্যের দাম বাড়িয়ে যাচ্ছে। রাজধানীর বাজারগুলোয় মঙ্গলবার প্রতি কেজি ছোলা বিক্রি হয়েছে ৭৫-৮০ টাকা, যা এক মাস আগে বিক্রি হয় ৭০-৭৫ টাকা।

ভোজ্যতেলের মধ্যে প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন বিক্রি হয়েছে ৯৩ থেকে ৯৫ টাকা, যা এক মাস আগে বিক্রি হয় ৮৪ থেকে ৮৮ টাকা। কোম্পানিভেদে বোতলজাত এক লিটার সয়াবিন বিক্রি হয়েছে ১০৫-১১৫ টাকা, যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ১০০-১১০ টাকা। প্রতি লিটার খোলা পাম অয়েল বিক্রি হয়েছে ৮০-৮৫ টাকা, যা এক মাস আগে ছিল ৬৯-৭০ টাকা।

প্রতিকেজি মশুরের ডাল মানভেদে বিক্রি হয়েছে ৬৫ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১২৫ টাকা, যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৫৫ থেকে সর্বোচ্চ ১২০ টাকা। প্রতি কেজি রসুন বিক্রি হয়েছে ১৪০ থেকে ২২৫ টাকা, যা এক মাস আগে ছিল ১২০ থেকে ১৮০ টাকা। আদা প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১৩০ থেকে ১৭০ টাকা, যা এক মাস আগে ছিল ১০০ থেকে ১৬০ টাকা।

পাম অয়েল সুপার বিক্রি হয়েছে ৮৪-৮৮ টাকা, যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৭৪-৭৮ টাকা। তাছাড়া মৌসুমেও বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পেঁয়াজ। এদিন প্রতি কেজি পেঁয়াজ দেশি বিক্রি হয়েছে ৯০-১১০ টাকা, যা গত বছর এ সময়ে বিক্রি হয়েছিল ২২ থেকে ৩০ টাকা।

দাম বৃদ্ধির এ চিত্র উঠে এসেছে সরকারি সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) দৈনিক বাজার মূল্যতালিকায়ও। এতে বলা হয়েছে, গত মাসের তুলনায় মসুরের ডাল ৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাসের ব্যবধানে রসুন ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ এবং আদা ৩ দশমিক ৭০ শতাংশ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। মাসের ব্যবধানে খোলা সয়াবিন প্রতি লিটারে ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ বেশি দরে, এক লিটারের বোতলজাত সয়াবিন ৪ দশমিক ৭৬ শতাংশ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 রমজান রমজাননির্ভর পণ্যে মূল্যবৃদ্ধি