banglanewspaper

তাসিন রহমান, প্রতিবেদকঃ চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় ৪ টি নিরীহ কুকুরছানাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আলমডাঙ্গা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযুক্ত ২ জন থানাপাড়ার ধনাঢ্য রূপক মিয়া ও তার গাড়ির হেলপার সামিউল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, গত ২২ জানুয়ারি প্রকাশ্যে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে কুকুরশাবক গুলোকে হত্যা করা হয়। মায়ের বুক থেকে কুকুরের বাচ্চাগুলিকে ধরে নিয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করে ফেলে রাখা হয়।

এ সম্পর্কে রূপক মিয়া নিজেকে ঘটনার সাথে জড়িত বলে অস্বীকৃতি জানান। তিনি বলেন তার কোন হেলপার জড়িত থাকলেও বিষয়টি সম্পর্কে কেউ তাকে কিছু অবহিত করেননি।

কিন্তু প্রতক্ষদর্শীদের মতে রুপক মিয়ে নিজেও এই ঘটনার সাথে সরাসরি জড়িত।

ঘটনায় "PAW Foundation" এর যশোর প্রতিনিধি শেখ আরাফাত ইসলাম আলমডাঙ্গা থানায় একটি মামলা করেন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডঃ মোঃআব্দুল্লাহিল কাফি ঘটনাটির সত্যতার প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন।

ঘটনার প্রেক্ষিতে "PAW Foundation" এর প্রধান রাকিবুল হক বলেন, "নতুন আইন পাশ হয়েছে ঠিক। কিন্তু এটি প্রয়োগে সাধারণ জনগণ থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতা বাড়াতে হবে। প্রাণিদের জন্য কোন প্রাণি থানায় যেতে পারে না, যেতে হবে মানুষকেই। একই সাথে দেশে ক্রমশ বেড়ে চলা বিভিন্ন সহিংসতাকে বন্ধ করতে হলে সম্ভাব্য সকল সহিংসতাকেই অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। নয়তো বাংলাদেশের নৈতিক দর্শনের জায়গা বিশ্বায়নের প্রতিযোগিতায় অন্ধকারেই পরে থাকবে।"

ট্যাগ: bdnewshour24 নৃশংসভাবে হত্যা