banglanewspaper

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগরে বিয়ের মাত্র তিন দিনের মাথায় স্বামী এবং স্বামীর পরিবারের লোকজনের মারপিট ও নির্যাতনের শিকার জনৈক নববধু কলেজ ছাত্রী (১৯)। তাকে আহত অবস্থায় রাণীনগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে নববধুর স্বামীসহ কয়েক জনকে আসামি করে নববধুর বাবা বাদি হয়ে রাণীনগর থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। নববধু রাণীনগর উপজেলার প্রত্যন্ত অ লের জনৈক ব্যাক্তির কন্যা।

নির্যাতনের শিকার আহত কলেজ ছাত্রী জানায়, নওগাঁ সদরের শিমুলিয়া গ্রামের আবু বক্করের ছেলে উজ্জল হোসেন (২৮) এর সাথে তিন বছর ধরে প্রেমের সর্ম্পক চলছিল। গত শুক্রবার রাতে কলেজ ছাত্রীর বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে উজ্জল তার সাথে দেখা করতে আসে। এ সময় স্থানীয় লোকজন টের পেয়ে ঘরের মধ্যে তাদেরকে আটক করে উজ্জলের পরিবারে খবর দেয় হয়। এরপর শনিবার দুপুরে উভয় পক্ষের আলোচনা অন্তে বিয়ে সম্পন্ন হয়। ওই দিন বিকেলে উজ্জল নববধুকে নিয়ে বাড়িতে যায়। পরের দিন থেকেই যৌতুকের দাবিসহ নানা কারনে শুরু হয় নববধুর উপর নির্যানত।

এরই রেশ ধরে মঙ্গলবার দুপুরে বাড়ি থেকে সান্তাহার বেড়াতে যাবার কথা বলে স্বামী উজ্জল হোসেন, ভাশুর, দেবর, দেবরের বন্ধু ও জাসহ একটি অটোরিক্সা নিয়ে বেড় হয়। এরপর সান্তাহার এসে সেখান থেকে রাণীনগর বাজার অতিক্রম করার সময় চলন্ত অটোরিক্সার ভিতরে নববধুর মূখ পড়নের ওড়না দিয়ে বেধে মারপিট করতে থাকে। এ সময় রাণীনগর উপজেলার এনায়েতপুর পার হবার সময় মূখ খুলে চিৎকার করতে লাগলে স্থানীয় লোকজন অটোরিক্সা আটক করে। আহত অবস্থায় নববধুকে উদ্ধার করে রাণীনগর হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। 

এ ব্যাপাওে রাণীনগর থানার ওসি মো: জহুরুল হক বলেন, এ ঘটনায় নববধুর বাবা বাদি হয়ে মঙ্গলবার রাতেই স্বামীসহ কয়েক জনকে আসামি করে থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

ট্যাগ: bdnewshour24