banglanewspaper

ফরহাদ খান, নড়াইল: নড়াইলের নড়াগাতি থানার মাউলি ইউনিয়নের গন্ধবাড়িয়া গ্রামে দরিদ্র কৃষক প্রভাস দাসের (৫৫) পানের বরজে আগুন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পূর্বশত্রুতার জের ধরে নিজ সম্প্রদায়ের লোকজন মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) গভীর রাতে পানের বরজে আগুন দেয় বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক প্রভাস দাস।

এতে ৩০ শতক জমির পান পুড়ে গেছে। সেই সঙ্গে দরিদ্র কৃষক প্রভাসের পরিবারের স্বপ্ন পুড়ে ছাই হয়েছে। প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার দুপুরে পানবরজে সরেজমিনে যাওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে পেয়ে মাটিতে গড়িয়ে কাঁদতে থাকেন প্রভাসের স্ত্রী বন্দনা দাস।

তিনি বলেন, শত্রুরা আমাদের সব শেষ করে দিয়েছে। আজই (বুধবার) আমাদের বরজের পান তুলে বাজারে বিক্রি করার কথা ছিল। এজন্য তিনজন কাজের লোকও আমরা ঠিক করেছিলাম। শত্রুতার জন্য আমরা পথের ফকির হয়ে গেলাম।

প্রভাস দাস জানান, এর আগে গত ১০ জানুয়ারি রাতেও এই পানের বরজের একাংশে আগুন দিয়েছিল শত্রুরা। এছাড়া ২০১৯ সালের ২ ডিসেম্বর গন্ধবাড়িয়া গ্রামের কয়েকজন তাদের (প্রভাস) পরিবারের সদস্যদের হাত-পা কেটে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এ সময় পান বরজ ও বরজের ভেতরের মেহগনি গাছ কেটে ফেলার কথাও বলে শত্রুরা।

এ ঘটনায় গত বছরের ৪ ডিসেম্বর গন্ধবাড়িয়া গ্রামের নন্দপাল (৬০), অসিত পাল (৬০), সঞ্জয় দাস (৫০), সুব্রত দাস (৩০), উদয় দাস (৫৫), সমীর দাস (৪৫), কৃষ্ণ দাস (৪৫) ও হারান দাসের (৪০) নামে নড়াগাতি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন প্রভাস দাস। এবার আগুন দিয়ে সব বরজ পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

গন্ধববাড়িয়া গ্রামের সুনীল দাস (৬২) বলেন, এমন অমানবিক ঘটনা মেনে নেয়া যায় না। এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। পাশের ইসলামপুর গ্রামের আনসার চৌধুরী বলেন, এ ধরণের অপরাধ মেনে নেয়া যায় না। আমরা তাদের শাস্তি দাবি করছি।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার জাকারিয়া শেখ বলেন, প্রভাস দাসের পানের বরজে আগুন দেয়ার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে আসি। ক্ষতিগ্রস্থ প্রভাস দাদাকে শান্ত¦না দেয়ার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। গ্রাম্য শত্রুতার কারণে এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানতে পেরেছি।

নড়াগাতি থানার ওসি রোকসানা খাতুন বলেন, খবর পেয়ে বুধবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। জড়িতদের খুঁজে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 

ট্যাগ: bdnewshour24 নড়াইল পানের বরজ