banglanewspaper

দেখতে দেখতে দুই বছর কেটে গেল। ২০১৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সকালে আচমকাই এসেছিল সেই ভয়ংকর খবর। শ্রীদেবী আর নেই। মাকে স্মরণ করে আজ স্মৃতিকাতর মেয়ে জাহ্নবী।

সে বছর ননদের ছেলের বিয়েতে অংশ নিতে উড়াল দিয়েছিলেন দুবাই। নানা আয়োজনে মেতে ছিলেন। ইনস্টাগ্রামে নিজের আনন্দঘন মুহূর্তের ছবি দিয়েছিলেন। আর ঠিক এই দিনেই হুট করে খবর আসে—তিনি নেই। চলে গেছেন না–ফেরার দেশে। ভক্তহৃদয় যেমন পুড়েছে, তেমনি বলিউডও হারাল এক মহানায়িকাকে। শ্রীদেবী মারা গেলেন দুই বছর আগের এই দিনে। পেরিয়ে গেল দুটি বছর।

শ্রীদেবী যখন মারা যান, তখন মুক্তি পায়নি জাহ্নবীর প্রথম ছবি। মায়ের মৃত্যু গভীরভাবে নাড়িয়ে দিয়েছিল তাঁকে এবং বোন খুশিকেও। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ধীরে ধীরে সামলে উঠেছেন শোক। নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন একের পর এক কাজে। তবে শোক কাটিয়ে উঠলেও মাকে আজও সমানভাবে অনুভব করেন জাহ্নবী কাপুর।

শ্রীদেবীর দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে মায়ের সঙ্গে ছোটবেলার একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন মাত্র একটি বাক্য। ‘মিস ইউ এভরিডে’। ছোট্ট বাক্য, কিন্তু এই বাক্যের সঙ্গে সাদাকালো ছবিটি যেন বলে ওঠে জাহ্নবীর মনের হাজার না বলা কথা। জাহ্নবীর পোস্ট করা এই ছবিতে মন্তব্য করেছেন করণ জোহর, জোয়া আখতার, মনীষ মালহোত্রা, স্মৃতি ইরানির মতো তারকারা। ইতিমধ্যে ছবিতে লাইকের সংখ্যা ৫ লাখ ৩০ হাজারের বেশি।

শ্রীদেবীর জন্ম ১৯৬৩ সালের ১৩ আগস্ট ভারতের তামিলনাড়ুতে। তাঁর মা রাজেশ্বরী ইয়াংগার ও বাবা আয়াপ্পাঁ ইয়াংগার। শ্রীদেবীর বাবা পেশায় ছিলেন আইনজীবী। শ্রীদেবীর আসল নাম শ্রী আম্মা ইয়াংগার আয়াপ্পাঁ। ১৯৬৯ সালে শিশুশিল্পী হিসেবে ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান তিনি। ভক্তিমূলক তামিল ছবি ‘তুনাইভান’ তাঁর প্রথম চলচ্চিত্র। নায়িকা হিসেবে বলিউডে শ্রীদেবীর প্রথম ছবি ‘ষোলা সাওয়ান’। ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৭৯ সালে। চলচ্চিত্র নির্মাতা বনি কাপুরকে শ্রীদেবী বিয়ে করেন ১৯৯৬ সালে। তাঁদের সংসারে দুই সন্তান—জাহ্নবী কাপুর ও খুশি কাপুর। জাহ্নবীর ইতিমধ্যেই বলিউডে অভিষেক হয়েছে।

ভারতের তো বটেই, বাংলাদেশের অনেক দর্শকের কাছে শ্রীদেবী শুধু বলিউডের নায়িকা নন, শ্রীদেবী মানে নস্টালজিয়া। শ্রীদেবী মানে ভিউকার্ডে হলুদ শিফন শাড়ি গায়ে জড়ানো নারী। দেয়ালে পোস্টার, পড়ার বইয়ের পাতায় তাঁর ছবি, তাঁর নাম।

ট্যাগ: bdnewshour24 স্মৃতিকাতর জাহ্নবী শ্রীদেবী