banglanewspaper

ফরহাদ খান, নড়াইল: নড়াইলের লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা বদর খন্দকারকে (৪০) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লোহাগড়া উপজেলাবাসীর ব্যানারে বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনের সড়কে এসব কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে কান্নাজড়িত কণ্ঠে নিহত বদর খন্দকারের আট বছরের শিশু সন্তান সাঈদ বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি করে।

চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী সাঈদ বলে, আমার মতো শিশু বয়সে আর কাউকে যেন এতিম করা না হয়। নিষ্ঠুর-নির্দয় ভাবে কারোর বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করা না হয়। আমি এবং আমার ছোট্ট ফুটফুটে বোন বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই। যথাযথ শাস্তি চাই। আর যেন কোনো সন্তানকে পিতাহারা হতে না হয়।

মানববন্ধন ও সমাবেশ আরো বক্তব্য রাখেন-লোহাগড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা শিকদার আব্দুল হান্নান রুনু, ভাইস চেয়ারম্যান বিএম কামাল হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন ইতি, জেলা পরিষদ সদস্য ও লোহাগড়া উপজেলা আ’লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক শেখ সাজ্জাদ হোসেন মুন্না, কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান, আ’লীগ নেতা আজিজুর রহমান আর্জু, গোলাম মোস্তফা, নিহত বদর খন্দকারের বড় ভাই বাবর খন্দকার প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, অবিলম্বে বদর খন্দকার হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শান্তি দিতে হবে। বদরের মতো আর কোনো হত্যাকান্ড আমরা দেখতে চাই না।

তবে এসব কর্মসূচীতে লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুন্সী আলাউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মশিয়ূর রহমানসহ আ’লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন না। তবে লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যানার হাতে কয়েকজন যুবক ও ছাত্রকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। 

এর আগে বদর খন্দকার হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে লোহাগড়া ইউনিয়নবাসীর উদ্যোগে কালনাঘাট এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে উপজেলা পরিষদের সামনে সমাবেশে মিলিত হয়। এসব কর্মসূচীতে নারী-পুরুষ ও শিশুসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

বদর খন্দকার নিহতের ঘটনায় তার স্ত্রী নাজমিন বেগম বাদী হয়ে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে লোহাগড়া থানা মামলা দায়ের করেন। মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে-লোহাগড়া উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও লোহাগড়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল শিকদারকে (৪৫)।

অন্য আসামিরা হলেন-নজরুল শিকদারের বড় ভাই ইবাদত শিকদার, ভাইপো জাকারিয়া শিকদার ওরফে গফফার, ভাগ্নে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক উপ-সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল আজাদ সুজন, চাচাতো ভাই এনায়েত শিকদারসহ ১৬জন। ইতোমধ্যে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এর মধ্যে মতিউর রহমান মুন্না বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় নড়াইলের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমাতুল মোর্শেদার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকরোক্তিমূলক জবানবন্দীতে আ’লীগ নেতা বদর খন্দকার হত্যায় নিজের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মিলটন কুমার দেবদাস বলেন, অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

মামলা বিবরণে জানা যায়, সামাজিক বিরোধ ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা বদর খন্দকারকে কুপিয়ে হত্যা করে আসামিরা।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টার দিকে লোহাগড়া-নড়াইল সড়কের টি-চরকালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে বদরকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করে সন্ত্রাসীরা। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে রাত ৯টার দিকে চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।

বদর লোহাগড়া ইউনিয়নের চরবগজুড়ি গ্রামের ময়ের আলীর ছেলে এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সাবেক সদস্য ছিলেন। ধারালো অস্ত্রের কোপে বদর খন্দকারের বাম হাতের তিনটি আঙ্গুল এবং ডান হাতের কবজি প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এছাড়া দুই পায়ের হাটুর নিচ থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন ছিল। ঘটনার দিন বদর খন্দকার চরকালনা এলাকায় নিজের ইটভাটা থেকে মোটরসাইকেলযোগে বাড়িতে ফিরছিলেন।

এ সময় বদরের কাছে ইট বিক্রির সাড়ে ৪ লাখ টাকা থাকলেও আসামি আকবর খন্দকার ওই টাকা নিয়ে গেছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলার বাদী নিহত বদর খন্দকারের স্ত্রী নাজমিন বেগম আরো বলেন, আমার স্বামীকে এর আগে ট্রাকচাপা দিয়ে হত্যা চেষ্টা করেছিলেন আসামিদের কয়েকজন। এ ব্যাপারে আমার স্বামী লোহাগড়া থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 বাবা হত্যাকারী